নয়াদিল্লি:  আবির্ভাবের পরে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল টিকটক। ভারতের বাজারে রীতিমত ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপের সঙ্গে টক্কর দিতে শুরু করেছে চিনের জনপ্রিয় এই সোশ্যাল মিডিয়া। আর এবারে এই করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধে ভারতে ১০০ কোটি টাকার চিকিৎসা সামগ্রী পাঠাতে চলেছে টিকটক। এমনটাই জানা গিয়েছে। যার মধ্যে থাকছে ৪,০০,০০০ বিসেস স্যুইট এবং ২,০০,০০০ মাস্ক।

জানা গিয়েছে কেন্দ্রীয় টেক্সটাইল মন্ত্রক ও স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সঙ্গে এই বিষয় নিয়ে কাজ করছে এই জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া। ইতিমধ্যে বিশ্বজুড়ে মহামারীর আকার নিয়েছে এই ঘাতক ভাইরাস । প্রতিদিন বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। বেশ কয়েকটি দেশে পরিস্থিতি যথেষ্ট সংকটজনক।

এই ভাইরাসের হাত থেকে রেহাই পাই নি ভারতও। ইতিমধ্যে ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যতে দেখা গিয়েছে ভাইরাসের প্রভাব। এছাড়া বেশ কয়েকজন মারাও গিয়েছে। এই অবস্থাতে টিক টকের এহেন পদক্ষেপ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। টিক টকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ওই সামগ্রীর বেশ কিছু ইতিমধ্যে ভারতে পৌঁছে গিয়েছে।

এছাড়া বাকি জিনিসপত্র কিছুদিনের মধ্যে পৌঁছে যাবে। টিক টকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে তাদের পাঠানো ওই বিশেষ স্যুইট স্বাস্থ্য কর্মীদের দেওয়ার জন্য তারা যথেষ্ট সম্মানিত। এ ছাড়া এই করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইতে ভারতে সব রকম সাহায্য তারা করবে বলেও জানিয়েছে। ভাইরাস প্রতিরোধে তাদের এই পদক্ষেপকে কুর্ণিশ জানিয়েছেন অনেকেই।

ভারতে এই মুহূর্তে টিক টক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২ কোটির বেশী। এই পরিস্থিতিতে যাতে সমাজ সচেতন করার জন্য টিক টক ব্যবহার করা যায় তার চেষ্টা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ব্যবহারকারীরা যাতে ভালো কাজে অর্থাৎ সচেতন করার কাজে এই অ্যাপ ব্যবহার করে তার আবেদন করা হয়েছে। এই মুহূর্তে ভারতে প্রায় আক্রান্তের সংখ্যা কয়েক হাজার । বেশ কয়েকজন মারাও গিয়েছেন কিন্তু সঠিক স্যুইট না থাকার কারণে চিকিৎসা করতে গিয়ে সমস্যাতে পড়তে হচ্ছে চিকিৎসক থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য কর্মীদের। এই বিশেষ স্যুইট গুলো ভারতে আসাতে কিছুটা হলেও এই সমস্যার রেহাই মিলবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব