শিলিগুড়ি: করোনা লকডাউনে মন ভালো করে দিল শিলা। উত্তরবঙ্গের বিখ্যাত বেঙ্গল সাফারি ঘিরে আনন্দের হাওয়া বইছে। বুধবার সকালে তিন শাবকের মা হয়েছে শিলা। শিলার আগের দুই বাচ্চার নাম কিকা ও রিকা এবং ইকা। নতুন করে আরও তিনজনের আগমনে ঘটেছে। এখন সাফারিতে মোট বাঘের সংখ্যা সাত।

তবে এইবার শিলার সঙ্গী বদলে গিয়েছে। কিকা, রিকা এবং ইকার জন্ম হয় ২০১৮ সালের সেপ্তেম্বর নাগাদ। শারীরিক দুর্বলতার কারণে মারা যায় ইকা। তারপরে বাকি দুই শাবক কিকা ও রিকা বেড়ে ওঠে সাফারি পার্কে। কিন্তু ওই বছরের শুরুতেই স্নেহাশিসকে নতুন সংসার করতে কলকাতার আলিপুর চিড়িয়াখানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এরপরেই শুরু হয় নতুন করে চিন্তা।

মনমরা হয়ে পড়ে শিলা। স্নেহাশিসের পর শিলার সঙ্গে কে সংসার করবে তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করে কর্তৃপক্ষ। এরপরেই বিভানকে সঙ্গী হিসেবে মেনে নেয় শিলা। দুজনের বোঝাপড়ার জন্য প্রায় তিনমাস সময় লেগে যায়। প্রথমে তাদের পাশাপাশি দু’টি এনক্লোজারে একমাস রাখা হয়।

সাফারি পার্কের ডিরেক্টর ধর্মদেও রাই বুধবার বলেন, “বাঘিনী শিলা বুধবার নতুন করে তিন শাবকের জন্ম দিয়েছে। বর্তমানে মোট বেঙ্গল সাফারিতে বাঘের সংখ্যা ৭”। করোনার জন্য লকডাউন জারি হলে পর্যটকহীন হয়ে যায় সাফারি পার্ক। এতে প্রজননে আরও বেশি সহায়ক পরিবেশ হয়ে যায়।

বিশেষভাবে দেখাশোনা চলছে তাদের। ২০১৮ সালের ১১ মে-তে স্নেহাশিস-শিলা তিন সদস্যের জন্ম হয়। ২ সেপ্টেম্বর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওই তিন বাঘ শাবকের নামকরণ করে কিকা, রিকা এবং ইকা। কিন্তু ২৯ অক্টোবর শারীরিক দুর্বলতার কারণে মারা যায় ইকা।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও