নয়াদিল্লি: দীর্ঘ লকডাউনের পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অবশেষে কিছু বিশেষ ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতীয় রেল। সোমবার বিকেল থেকে করা যাচ্ছিল টিকিট বুকিং। অনলাইনে টিকিট বুকিং শুরু হতেই প্রথম তিন ঘন্টার মধ্যে বুকিং হয়ে যায় ৩০ হাজার টিকিট।

প্রাথমিকভাবে ১৫ জোড়া বিশেষ শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ট্রেন চালানোর কথ্যা জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার থেকেই চলতে শুরু করবে এই ট্রেনগুলি। কোনও কোনও ট্রেন চলবে সপ্তাহে ২ দিন, কোনওটা ৩ দিন আবার কোনও ট্রেন চলবে প্রত্যেকদিনই।

এই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) ট্রেনগুলির টিকিট বিক্রি করে আয় হয়েছে প্রায় ১০ কোটি টাকা। এমনকি অনলাইন টিকিট কাটতে গিয়ে কয়েক হাজার মানুষ আইআরসিটিসি ওয়েবসাইটে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হন। বেলা ৪ টের সময় সাইট খোলার কথা থাকলেও, প্রচন্ড ট্রাফিকের কারণে ক্র্যাশ হয়ে যায় আইআরসিটিসি সাইট। স্পন্ধ্যে ৬ টা নাগাদ খোলে সাইট। টিকিট বুকিং শুরু হয় তখন থেকেই।

হাওড়া-নয়াদিল্লি ট্রেনের সমস্ত টিকিট প্রথম ১০ মিনিটের মধ্যেই বুক হয়ে যায়। হাওড়া-নয়াদিল্লি এক্সপ্রেস বিকেল ৫ টা ৫-এ যাত্রা শুরু করবে।

জানা গিয়েছে, সোমবার রাত ৯ টা নাগাদই বিক্রি হয়ে যায় প্রায় ৯.৯৯ কোটি টাকার টিকিট। ১২ থেকে ১৭ তারিখ অবধি মুম্বাই-দিল্লি রুটে সমস্ত টিকিট বুক হয়ে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আইআরসিটিসি ওয়েবসাইট অনুসারে, ভুবনেশ্বর-নয়াদিল্লি ট্রেনের সমস্ত টিকিট সন্ধ্যা ৬ টা ৩০-এর মধ্যে বিক্রি হয়ে গিয়েছে।

এই বিশেষ এসি ট্রেনগুলিতে যাত্রা কিছুটা আলাদা হবে। কারণ এই ট্রেনে চড়া যাত্রীদেরকে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আরোহীদের মোবাইল ফোনে আরোগ্য সেতু অ্যাপ্লিকেশনও ডাউনলোড করতে হবে। এছাড়া প্রত্যেক যাত্রীর স্ক্রিনিং করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.