পুরী: শ্রীক্ষেত্র পুরী৷ আদি অনন্ত থেকে বাঙালির প্রিয় ডেস্টিনেশন৷ পুরী যাননি এমন বাঙালি খুঁজে পাওয়া ভার৷ মহাপ্রভুর আশীর্বাদ বাঙালির কাছে পরম প্রাপ্তি৷ প্রায় প্রতিদিনই নিয়ম করে লক্ষাধিক মানুষ ভিড় জমান প্রভু জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রার দর্শনে৷ সেই ভিড় ঠেলে মহাপ্রভুর দর্শন লাভ এক কথায় যুদ্ধ জয়ের সামিল৷ ভিড় ঠেলে অনেকেই অবশ্য প্রবেশ করতে পারেন না মন্দিরে৷ এবার তাঁদের জন্য সুখবর৷ পুরীর মন্দিরে বিনা লাইনে প্রবেশের জন্য টিকিট ব্যবস্থা চালু করতে চলেছে মন্দির কর্তৃপক্ষ৷

পুরীর মন্দির কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গিয়েছে, জগন্নাথ দর্শনে এবার টিকিট কেটে ঢোকা যাবে মন্দিরে৷ কাছ থেকে মিলবে মহাপ্রভু দর্শনের সুযোগ৷ দিনে চারবার এই টিকিট কাটা যাবে৷ আপাতত টিকিটের ৬০ শতাংশ পাওয়া যাবে অনলাইনে৷ এছাড়া বাকি ৪০ শতাংশ মিলবে মন্দির থেকে৷ তবে কবে থেকে চালু হচ্ছে এই মন্দিরে প্রবেশের এই টিকিট ব্যবস্থা তা জানা যায়নি৷ টিকিটে পাশাপাশি বর্তমানে যেভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে বিনা অর্থে মন্দিরে প্রবেশ করা যায়, সেই প্রথাও চালু থাকবে বলে জানানো হয়েছে পুরী মন্দির কর্তৃপক্ষের তরফে৷

হিন্দুদের কাছে অন্যতম পবিত্র ধর্মীয় স্থান পুরী৷ মন্দির কর্তৃপক্ষের হিসাব বলছে, প্রতিদিন গড়ে পুরীর মন্দিরে আসেন পঞ্চাশ থেকে সত্তোর হাজার ভক্ত৷ বিশেষ দিনে তা পৌঁছে যায় প্রায় দু থেকে তিন লাখে৷ সেই সময় বহুক্ষণ লাইনে অপেক্ষার পর মন্দিরে প্রবেশের সুযোগ মেলে৷ বয়স্ক-বয়স্কা বা অনেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে জগন্নাথদেবের দর্শন করতে পারেন না৷ তাঁদের কথা বিবেচনা করেই টিকিট ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ বলে জানিয়েছে পুরী মন্দির কমিটি৷

অনেকে আবার বলছেন, এর ফলে পান্ডারাজ কমবে মহাপ্রভুর মন্দিরে৷ বর্তমানে বিনা অর্থে মন্দিরে প্রবেশের সুযোগ রয়েছে৷ কিন্তু অনেক সময়ই ভক্তদের আবদার মেনে বাড়তি টাকায় অন্য দরজা দিয়ে ভক্তদের মন্দিরে ঢুকিয়ে দেন তারা৷ ফলে বহু ক্ষেত্রেই অরাজগতার সৃষ্টি হয়৷ এবার টিকিট প্রথা চালু হলে তা কমবে বলে মনে করা হচ্ছে৷

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV