প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বড়দের বারন না শুনে প্রাণ গেল তিন কিশোরের৷ ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিন ২৪ পরগনার নরেন্দ্রপুরে৷ তিন জনের দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তে৷ রিপোর্ট আসার পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে জানাল পুলিশ৷

দক্ষিন ২৪ পরগনার নরেন্দ্রপুর থানার জাগতিপোতায় খেয়াদা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার একটি ঝিল রয়েছে৷ ওই ঝিলে শুক্রবার দুপুরে স্নান করতে নামে ছয়জন কিশোর৷ এরা হল বরৌনক দাস, শুভজিৎ, শান রায়, সুরজিৎ রায়, চরণ ঢালি ও বিশাল মিস্ত্রি৷ এদের মধ্যে তিনজন কোনও রকম সাতরে পাড়ে উঠে যায়৷ বাকি তিনজন জলে ডুবে যায়৷

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ৷ স্থানীয়দের সহযোগিতায় তারা জল থেকে তিনজনকে উদ্ধার করে৷ এরা হল রৌনক, শুভজিৎ, শান৷ দেহগুলি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে পাঠানো হয়৷ কীভাবে এই দুর্ঘটনা ঘটল তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ৷ তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে জানাল পুলিশ৷

স্থানীয় সূত্রে খবর, ঝিলে স্নান করতে যাচ্ছি বলে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিল ওই কিশোররা৷ এর মধ্যে শানকে তার বাড়ির লোক যেতে বারণ করেছিল৷ কিন্তু সে বারণ শান শোনেনি৷ তারপরই মর্মান্তিক ঘটনার খবর আসে বাড়িতে৷ ঝিলের গভীরতা খুব বেশি ছিল না৷ তিন থেকে চার ফুট হবে। তবে মাঝখানটায় গভীরতা একটু বেশি ছিল। সেখানে চলে যাওতেই ওই তিন কিশোরের হয়ত মৃত্যু হয়েছে৷ এমনটাই স্থানীয়দের ধারনা৷