স্টাফ রিপোর্টার, জগদ্দল: স্কুল চত্বরে দুষ্কৃতীদের লুকিয়ে রাখা বোমা ফেটে আহত হল তিন নাবালক ছাত্র। তাদের মধ্যে চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বর্তমানে সে বারাকপুর বি এন বসু মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনাটি ঘটেছে, উত্তর ২৪ পরগণা জেলার জগদ্দল থানার হাঁসিয়া অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে। এই ঘটনায় দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অভিভাবক এবং স্থানীয় বাসিন্দারা।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, জখম ওই ছাত্রের নাম কৌশিক বৈদ্য (১০)। এছাড়াও বোমা ফাটার ঘটনায় আরও দুই স্কুল ছাত্র আহত হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এই বিষয়ে হাঁসিয়া ঐ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা সূচন্দ্রা সেনগুপ্ত বলেন, “আমাদের স্কুলে প্রথম এইধরনের ঘটনা ঘটেছে। স্কুলের টিফিনের সময় মিড ডে মিলের খাবার খেয়ে অন্যান্য দিনের মতোই ছাত্রছাত্রীরা সামনের খেলার মাঠে খেলছিল। তখন স্কুল চত্বরে জড়ো করা মাটির স্তূপের নিচে লুকানো দুটি গোলাকার বস্তু কুড়িয়ে পায় ওই ছাত্র। সেই সময় একটি বস্তু ওই ছাত্রের হাতে থাকা অবস্থায় বিস্ফোরন হয়। তখন বুঝতে পারি ওই মাটির স্তূপের নিচে বোমা লুকানো ছিল।”

তিনি আরও বলেন, ”কৌশিকের মারাত্মক আঘাত লেগেছে, তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আরও দুজনের আঘাত লাগলেও ততটা গুরুতর নয়। এই ঘটনায় স্কুলের মধ্যে আমরা সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। আমি জানি না স্কুলের সামনে জড়ো করা মাটির স্তূপের নিচে আরও বোমা লুকানো আছে কি না ?”

এদিকে এই ঘটনার জেরে টিফিন টাইমের পর স্কুল ছুটি দিয়ে দেন প্রধান শিক্ষিকা। ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছয় জগদ্দল থানার পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে আরেকটি বোমা উদ্ধার করে নিয়ে যায় পুলিশ। গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।