কলকাতা: শুক্রবার সংসদে মোদী-টু সরকারের প্রথম বাজেট পেশ৷ স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে এই প্রথম কোনও মহিলা অর্থমন্ত্রী পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করবেন। নিম্নবিত্ত থেকে উচ্চবিত্ত, সকলেরই সেই বাজেট নিয়ে প্রত্যাশা রয়েছে৷কেন্দ্রের কাছে নিজের প্রত্যাশা জানালেন ফ্যাশন ডিজাইনার অগ্নিমিত্রা পল৷ লোকসভা ভোটের আগে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তিনি৷

অগ্নিমিত্রা বলেন, যেহেতু আমাদের কৃষি প্রধান দেশ তাই প্রথমত চাইব, চাষীদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার ভাল কিছু করুর৷ তাঁদের সারে ভর্তুকি বাড়িয়ে দেওয়া হোক৷ ওদের স্বার্থ আগে দেখা উচিত৷

দ্বিতীয়ত, এক মহিলা হিসেবে চাই গ্যাসের দাম যাতে আরও কমানো হোক এছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য, যেগুলি ছাড়া একটা সাধরণ পরিবার চলে না-সেই জিনিসগুলির দাম কমানো হোক৷

তৃতীয়ত, আরও বেশি করে মানুষ ইনকাম ট্যাক্সের আওতায় আসুক৷দেখা গিয়েছে, দেশের খুব কম পার্সেন্টেজ মানুষ ইনকাম ট্যাক্স দেয়৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, চাকুরিজীবীরা ঠিকমতো কর দেয় কিন্তু ব্যবসায়ীরা কর ফাঁকি দেয়৷

চতুর্থত, চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর মানুষের আয় একেবারেই সীমিত হয়ে যায়৷ সংসার চালাতে শুধুমাত্র ব্যাংকে গচ্ছিত টাকার সুদের উপর তাঁদের নির্ভর করতে হয়৷ তাই সুদের হার যেন না কমানো হয়৷ কারণ ওটাই তাঁদের একমাত্র ইনকাম এটা ভুললে চলবে না৷

পঞ্চমত, মেডিক্লেমকে জিএসটির বাইকে রাখা হোক৷

ষষ্ঠত, অনেক কোম্পানিতে পেনশন দেয় না৷ সেই কোম্পানিগুলিতে যাঁরা চাকরি করেন অবসরের পর তাঁরা অনেকেই অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে পড়েন৷ তাই আমি চাই যাঁরা চাকরি করেছেন তাঁরা সবাই যেন পেনশন পায়৷

সপ্তমত, যাঁরা সন্তানহীন তাঁদের পেনশনের আওতাভুক্ত করা হোক৷কারণ ছেলে-মেয়ে না থাকলে বয়স হলে তাঁদের কিভাবে চলবে! এই বিষয়টা সরকারকে দেখতে হবে৷

অষ্টমত, একজন মহিলা হিসেবে চাইব, সরকার কিছু ভাল কিছু স্কিম নিয়ে আসুক যাতে সাধারণ মহিলারা লোন নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন৷ উন্নয়নশীল দেশ গড়ার জন্য মহিলাদের বেশি করে জিডিপিতে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে৷

নয় নম্বর বিষয় হল, কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত পরিবেশের উপর নজর দেওয়া৷ এটা খুব জরুরি৷ দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে জলের সমস্যা শুরু হয়ে গিয়েছে৷এই সমস্যা সমাধানে এখন থেকে উদ্যোগী না হলে ভবিষ্যতে বড় সঙ্কটের মধ্যে পড়তে হবে৷

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প