স্টাফ রিপোর্টার , হাওড়া : দূরে থেকেই মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন ওঁরা। বিনামূল্যে পৌঁছে দিচ্ছেন ওষুধ। অনেকেরই ওষুধের প্রয়োজন হয়। লকডাউন হলেও এই প্রয়োজন বন্ধ রাখা অসম্ভব। সেই ভাবনা নিয়েই ময়দানে নেমে পড়েছে সৌরভ পাড়ুই, সঞ্জিত কোটালরা।

ডোমজুড় ও মাকড়দহের জয়চন্ডীতলা গ্রামের সৌরভ পাড়ুই, সঞ্জিত কোটাল, শুকদেব ঘোষাল, অভিজিৎ ধাড়া ও শুভদীপ ঘোষাল এই লকডাউনের সময় গরীব দুঃখী দুঃস্থ মানুষদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় ওষুধ পৌছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। এ এক অভিনব উদ্যোগ, যেখানে অনুদান হিসাবে অত্যাবশ্যক ওষুধ সামগ্রী পৌছে দেওয়া হচ্ছে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। সঞ্জীত কোটাল ও সৌরভ পাড়ুই বলেন, ‘পেসক্রিপশন দেখেই ওষুধ পৌছে দেওয়া হচ্ছে, যদি ঔষধ স্টকে না থাকে তখন নাম নথিভুক্ত করে নেওয়া হচ্ছে যাতে করে পরে এসে তারা ঐ বিশেষ ওষুধ তাকে পৌছে দিয়ে যেতে পারে। তবে সব ঔষধই যে তারা দিতে পারবে এমন নয়, তাদের সাধ্যমত অত্যাবশ্যক কিছু ওষুধ তারা পৌছে দেবার চেষ্টা করছে। আরো অন্যান্যরা বিশেষ করে যাতে অনুপ্রাণিত হয়ে তাদের নিজ নিজ এলাকায় এই উদ্যোগ নেয় সেই অনুরোধ জানিয়েছি।’

এদিকে দেশজুড়ে লকডাউনের মেয়াদ বাড়িয়েছে কেন্দ্র। আগামী ১৭ মে অবধি চলছে লকডাউন। এই নিয়ে দেশের লকডাউন পড়ল তৃতীয় ধাপে। কিন্তু দেশে করোনা রুখতেই লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। সমগ্র দেশকে করোনা সংক্রামণের বিচারে বেশ কয়েকটি জোনে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। রয়েছে রেড জোন, অরেঞ্জ জোন, গ্রিন জোন। প্রথম দুই দফার তুলনায় কিছুটা শিথিলতা রয়েছে অরেঞ্জ ও গ্রিন জোনে। কিন্তু রেড জোনেও রয়েছে কিছু পরিষেবা। কলকাতাও রয়েছে রেড জোন ভুক্ত। পাশাপাশি করোনার রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে রাজ্যের আরও একাধিক জেলা। রেড জোনেও বেশ কিছু কাজ করতে পারবেন বাসিন্দারা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।