স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: গ্রামীণ হাওড়ার বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ ক্রমশ বন্যপ্রাণ সম্পর্কে সচেতন হচ্ছেন।তারই ফলস্বরূপ প্রায়ই বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ধার হচ্ছে বাঘরোল,বিভিন্ন প্রজাতির সাপ। এবার বন্যপ্রাণ সচেতনতার নিদর্শন রাখলেন বছর তিরিশের এক যুবক।

রবিবার দুপুরে বাড়ির উঠানে একটি কেউটে শাবককে ঘুরতে দেখেন বাগনান-১ ব্লকের হারোপ গ্রামের বাসিন্দা প্রসেনজিৎ দাস। তিনি শাবকটিকে কোনওভাবে না মেরে বেশ কিছুক্ষণের চেষ্টায় বোতলবন্দি করেন।

খবর দেন স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘স্বপ্ন দেখার উজান গাঙ’-এর প্রতিনিধিদের। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির পক্ষ থেকে খবর দেওয়া হয় বন দপ্তরে। বনদপ্তরের কর্মীরা প্রসেনজিৎ দাসের বাড়ির থেকে কেউটে শাবকটিকে নিয়ে যান।প্রসেনজিৎ জানায়, সে নিজেও একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মী যাঁরা বন্যপ্রাণ সচেতনতার উপর নিয়মিত প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

গত ১৫ নভেম্বর রাতে শ্যামপুরের গোবিন্দপুরে মাছের ঘুণিতে আটকে পড়ে একটি চন্দ্রবোড়া ও একটি কেউটে সাপ ধরা পড়েছিল। পরের দিন সকালে উলুবেড়িয়ার বন দফতরের কর্মীরা সাপ উদ্ধার করে গড়চুমুক প্রাণী চিকিত্‍সা কেন্দ্রে নিয়ে যায়। ওই একই দিনে রাতের অন্ধকারে রাস্তা পার হওয়ার সময় স্থানীয় বাসিন্দাদের হাতে ধরা পড়া একটি কচ্ছপ। সেটিকে উদ্ধার করে বন দফতর।

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে উলুবেড়িয়ার বাণিবন গ্রাম পঞ্চায়েতের বৃন্দাবনপুরের গৃহবধূ কাকলি পাল রাস্তা দিয়ে প্রায় সাড়ে ৩ কেজি ওজনের কচ্ছপটিকে রাস্তা পার হতে দেখেন। পরে তিনি কচ্ছপটিকে বাড়িতে নিয়ে আসার পর বন দফতরে খবর দিলে শুক্রবার সকালে বনদফতরের কর্মীরা কচ্ছপটিকে উদ্ধার করে গড়চুমুক প্রাণীর চিকিত্‍সা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।