বাসুদেব ঘোষ, রামপুরহাট: আজ বিজয়া দশমী৷ প্রথা মেনে নিরঞ্জন হল দেবী প্রতিমা৷ কি পড়ছেন, ঠিক বিশ্বাস হচ্ছে না তো? ভাবছেন লক্ষ্মী পুজোও কেটে গিয়েছে, সামনেই দীপান্বিতার আরাধনা৷ তার মধ্যে বিজয়া দশমী? ঠিকই পড়েছেন৷ বৃহস্পতিবার প্রথা মেনে দুর্গাপুজোর বিজয়া দশমী পালন করলেন এই গ্রামের বাসিন্দারা৷

বীরভূমের নলহাটি ২ নম্বর ব্লকের শীতল গ্রামে গত তিন দিন ধরে ধুমধাম করে পালিত হল দুর্গা পুজো৷ বা বলা ভালো, ফের এই কার্তিক মাসে পুজো হল দেবী দুর্গার৷ গোট রাজ্যের সাথে এখানেও একই দিনে পুজো শুরু হয়েছিল এবং চারদিন ধুমধাম করে কাটিয়ে একাদশীর দিন নিরঞ্জনের আগে মাকে বরণ করতে গিয়ে ঘটে গিয়েছিল এক বিপত্তি৷

তার জেরেই ফের মায়ের অকালবোধন ঘটানো হল৷ কি বিপত্তি ঘটে ছিল জানেন? একাদশীর দিন মায়ের প্রতিমা নিরঞ্জনের আগে মাকে বরণ করছিলেন গ্রামের মহিলারা৷ সেই সময় অসাবধানতায় মা দুর্গার চুল আগুনে ধরে যায়৷ এর পরেই পুরোহিত নিদান দেন ফের মূর্তি গড়ে পুজো করতে হবে৷

সেই নিদান মেনে মূর্তি গড়ার কাজ শুরু হয়৷ মঙ্গলবার গ্রামের ১০১ জন মহিলা বহরমপুরের গঙ্গা থেকে কলসিতে করে গঙ্গা জল নিয়ে এসে গ্রামে ছড়িয়ে শুদ্ধিকরণ করেন গোটা গ্রামকে৷ গ্রামের বাসিন্দা সৌমেন চট্টোপাধ্যায়, দেবাশিস সিংহরা বলেন, বরণ করতে গিয়ে মায়ের চুল পুড়ে যাওয়ায় গ্রামের অমঙ্গল হওয়ার একটা আশঙ্কা থেকে গিয়েছিল৷ তাই পুরোহিতের কাছে নিদান নেওয়া হয়৷ তাঁর কথা মতই পুনরায় মায়ের মূর্তি তৈরি করে পুজো শুরু হয়৷ তিন দিন ধরে চলে মায়ের পুজো৷ সেই দুর্গা পুজোর আজই ছিল বিজয়া দশমী৷

শুক্রবার একাদশীর দিন মাকে ফের বিদায় বরণ করে প্রতিমা নিরঞ্জন করা হবে৷ ইতিমধ্যেই তিনদিনের পুজো ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনার অভাব নেই গ্রামের মানুষের মধ্যে৷ আশেপাশের গ্রাম থেকেও মানুষ এই অকাল পুজো দেখতে ছুটে যান৷