ঢাকা: নির্বাসন শেষ হয়েছে৷ অনুশীলন-প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। কিন্তু বাইশ গজে প্রত্যাবর্তনের আগেই বির্তকের কেন্দ্রবিন্দুতে প্রাক্তন বাংলাদেশি অধিনায়ক শাকিব আল হাসান৷ বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপ দিয়ে মঙ্গলবার মাঠে ফিরছেন এই অল-রাউন্ডার৷ বাংলাদেশের ওয়ান ডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের মতে, দিনটি শাকিবের জন্য তো বটেই, দেশের ক্রিকেটের জন্যও এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন।

কিছুদিন আগে কলকাতায় কালীপুজোর উদ্বোধনে এসে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন শাকিব। শেষ পর্যন্ত ক্ষমা চাইতে হয় তাঁকে। এর জন্য সোশাল মিডিয়ায় খুনের হুমকিও পান বিশ্বের প্রাক্তন এক নম্বর অল-রাউন্ডার৷ এবার সোশাল মিডিয়ায় স্ত্রী’র সঙ্গে ছবি পোস্ট করেও ট্রোলড হলেন শাকিব৷

ছবিতে দেখা গিয়েছে, স্ত্রীকে আলিঙ্গন করছেন বাংলাদেশের প্রাক্তন অধিনায়ক। নেটাগরিকদের কেউ কেউ শাকিবের এই পোস্ট ভালো চোখে দেখেননি৷ একজন লিখেছেন, ‘এমন ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি প্রকাশ্যে না-আনলেই ভালো হত। আমরা জানি যে আপনারা দুর্দান্ত কাপল’।

আর একজন হাসির ইমোজি দিয়ে লিখেছেন, ‘স্যার জী বোরখা তো পরাও’। অপর একজন লিখেছেন, ‘ভাই, তুমি কেমন ধরনের ধর্মের অনুসারী? পুজোয় আসার পর তোমাকে মৃত্যুর হুমকি দেওয়া হল’। একজন আবার তাঁকে ‘ভীতু’ বলে চিহ্নিত করেছেন। অন্যজন রসিকতার ভঙ্গিতে লিখেছেন, ‘শাকিব, ক্ষমা প্রার্থনার চিঠি নিয়ে তৈরি হও’।

বিতর্ক দূরে সরিয়ে রেখে এক বছরের নির্বাসন কাটিয়ে মঙ্গলবার মাঠে ফিরছেন তিনি৷ উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে শাকিবদের প্রতিপক্ষ তামিমের ফরচুন বরিশাল। গত ১৫-১৬ বছর ধরে তিনি কাছ থেকে দেখে আসছেন শাকিবকে। তামিম বলেন, ‘আমি নিশ্চিত, ওর জন্য এটি অনেক বড় দিন। এক বছর পর মাঠে ফিরছে। ওর জন্য বড় দিন, বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য একটি গুরুত্বপুর্ণ দিন। কারণ, ওর মাপের ক্রিকেটার ফিরে এসেছে। আমি নিশ্চিত ওর ভক্তরা ওকে দেখার জন্য মুখিয়ে থাকবে।’

তামিম আরও বলেন, ‘যেহেতু আমার জন্য এটা একটা খেলা, আমি চেষ্টা করব যেন যত কম প্রভাব ও ফেলতে পারে। তবে দিন শেষে আমি খুশি যে ও ফিরছে। আমি নিশ্চিত, ও কালকে থেকে আরও ভালোভাবে এগিয়ে যাবে।’ শাকিবের ফেরাকে আরও বৃহত্তর দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছেন মুশফিক। বেক্সিমকো ঢাকার অধিনায়কের মতে, তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য এই টুর্নামেন্ট বড় সুযোগ শাকিবের কাছ থেকে শেখার।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I