নয়াদিল্লি: কখনও রামনবমী, কখনও মহরম! কখনও লাউডস্পিকার কিংবা বাবরি মসজিদ। এ যেন চিরন্তন সমস্যায় জ্বলছে দেশ। মানুষকে আর মানুষ বলে মনে করছে না কেউ। তাদের গায়ে গেরুয়া বসন নাকি মাথায় হিজাব, এই দিয়েই চিনছে একে অপরকে। এসবের মাঝেই যেন চোখ খুলে দিল মহারাষ্ট্র পুলিশ।

এই তো ক’দিন আগেই গেল রামনবমী। শিরোনামে উঠে এল হিংসার বীভৎস সব ছবি। তার রেশ কাটেনি এখনও। অনেকেই হয়ত বলছেন, ‘সবাই মানুষ, সবাই সমান।’ কিন্তু তাতে তেমন জোর নেই। নেতা-মন্ত্রীরা বলছেন নেহাত রাজনীতির স্বার্থে। তবে মহারাষ্ট্র পুলিশ এমন একটি ছবি দিয়ে প্রচার করছে, যা সত্যিই বুঝিয়ে দিচ্ছে আক্ষরিক অর্থেই আমরা সবাই এক।

মহারাষ্ট্রে সাগরি থানা ওই ছবি বড় করে টাঙিয়েছে হোর্ডিং-এ। রয়েছে বেশ কয়েকটা কঙ্কালের ছবি। কোনোটার তলায় লেখা হিন্দু, কোনোটাতে মুসলিম, কোনোটাতে দরিদ্র। অর্থাৎ, জাত, ধর্ম বা আর্থিক সংস্থান যেমনই হোক না কেন, উপরের চামড়াটা তুলে দিলে সবাই এক। কঙ্কালে কোনও তফাৎ নেই, একই রঙ, একই সংখ্যার হাড়, একই চেহারা। অর্থাৎ অবয়বে নেই কোনও জাত, ধর্ম, বর্ণ।

এর থেকে ভালভাবে বোধ হয় মানুষকে আর বোঝানো সম্ভব নয়। ‘আমি’, ‘তুমি’ সবাই এক। শুধু দুটো স্লোগান বললেই তো আর কঙ্কালের গায়ে গেরুয়া রঙ চড়ে যাবে না। আর কেউ তো এই পৃথিবীতে দাড়ি বা হিজাব নিয়ে আসে না, যায়ও না। ধর্মের কচকচানির মধ্যে এই পোস্টারে সত্যিই চোখটা আটকে যাচ্ছে বটে!