সম্প্রতি Realme মালয়েশিয়ায় লঞ্চ করেছে Cobble Bluetooth স্পিকার। নতুন স্পিকারে রয়েছে ইউএসপিটি আলোকিত ল্যানিয়ার্ড যা অন্ধকারে জ্বলজ্বল করে এবং একটি গেম মোড যা কম বিলম্বিত বলে দাবি করা হয়ে সংস্থার তরফে। এর পাশাপাশি স্পিকারে রয়েছে একটি ১,৫০০ মেগাহার্জের একটি ব্যাটারি পরিষেবা, যা একবারের চার্জে ৯ ঘন্টা টানা পরিষেবা দিয়ে থাকে। সংস্থার স্পিকার সহজে পরিচালন করা যাবে রিয়েলমে লিংক অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে। এই অ্যাপ্লিকেশনটি মিলবে শুধুমাত্র অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের। পাশাপাশি এই অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে সেটিংস পরিবর্তন করতে পারবে গ্রাহক।

সংস্থার ওয়েবসাইটে Realme Cobble Bluetooth স্পিকারের দাম উল্লেখ করা হয়েছে। মালয়েশিয়া এই স্পিকারের দাম রাখা হয়েছে MYR 99, যা ভারতীয় মূল্যে প্রায় ১,৮০০ টাকা। মেটাল ব্ল্যাক এবং ইলেকট্রিক ব্লু রঙের সম্ভারে লঞ্চ করা হয়েছিল স্পিকারটি। তবে ভারত এবং বিশ্ববাজারে কবে এই স্পিকার প্রকাশ করা হবে তা সংস্থার তরফে জানানো হয়নি।

Realme Cobble Bluetooth স্পিকারে রয়েছে luminous lanyard যা অন্ধকারে উজ্জ্বল থাকে। কোবল আকারের একটি ডায়নামিক ড্রাইভার দিয়ে সজ্জিত এই স্পিকারে রয়েছে একটি প্যাসিভ বেস রেডিওটর এবং একটি ৫ ওয়াট সাউন্ড আউটপুট।

রিয়েলমি জানিয়েছে, তাদের স্পিকারের স্টিরিও পেয়ারিং বৈশিষ্ট্য এবং তিনটি সমকক্ষ প্রেজেটস – বেস, ডায়নামিক এবং ব্রাইটের সঙ্গে আসে। ব্লুটুথ স্পিকারে ৮৮ মিমি হিসাবে কম স্বল্পতার একটি গেম মোডের ব্যবস্থা রয়েছে।

সদ্য লঞ্চ করা Realme Cobble Bluetooth স্পিকারে রয়েছে জল প্রতিরোধ ক্ষমতা রক্ষার জন্য IPX5 rating ব্যবস্থা, যা splashes এবং sprinkles থেক রক্ষা করে থাকে। সংযোগের জন্য গ্রাহকদের মিলে থাকে একটি ৫.০ ব্লুটুথ ভার্সান। অন্যদিকে ১৫০০ মেগাহার্জের একটি ব্যাটারি পরিষেবা রয়েছে, যা একবার চার্জে টানা ৯ ঘন্টা প্লে ব্যাক সময় দিয়ে থাকে। রিয়েলমি সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে তাদের স্পিকারটি মাত্র ২.৫ ঘন্টা সময়ে ফুল চার্জ হয়ে থাকে। অ্যান্ড্রয়েড ফোনের গ্রহকদের এই স্পিকার সহজে পরিচালনা করার জন্য মিলবে রিয়েলমি লিঙ্ক অ্যাপ। এই অ্যাপের মাধ্যমে গান পরিচালনা সঙ্গে নানা সেটিংস পরিবর্তন করা যাবে। তবে রিয়েলমি লিঙ্ক অ্যাপ আইওএস ব্যবহারকারীদের জন্য এখনো চালু করা হয়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.