হায়দরাবাদ: বিশ্ব জুড়ে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে জ্বালানি তেলের দাম। আর প্লাস্টিক থেকে ছড়াচ্ছে দূষণ। তাই অতিরিক্ত প্লাস্টিক থেকে পেট্রোল, ডিজেল বানিয়ে এক অভিনব আবিষ্কার করলেন হায়দ্রাবাদের ইঞ্জিনিয়ার। তাঁর আবিষ্কারে মাত্র ৪০ টাকায় মিলছে ১ লিটার পেট্রল। বাতিল প্লাস্টিক থেকে তিনি তৈরি করছেন জ্বালানী। আর এই প্রক্রিয়ায় কোনও দূষণ হচ্ছে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পেশায় প্রফেসর ৪৫ বছর বয়সী সতীশ কুমার। তবে তিনি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়র। হায়দরাবাদের বহুদিনের বাসিন্দা। তাঁর দাবি, তিন ধাপের রিভার্স ইঞ্জিনিয়ারিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাতিল প্রাস্টিক থেকে তিনি পেট্রল বানাতে সক্ষম। প্লাস্টিক থেকে পেট্রল বানানোর প্রক্রিয়ার নাম প্লাস্টিক পাইরোলাইসিস। চারটি ধাপে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। ভ্যাকুয়ামে প্লাস্টিক গরম করতে হবে, পরের ধাপ ডিপলিমেরাইজেশন, তৃতীয় ধাপ গ্যামিফিকেশন, চতুর্থ ধাপ কন্ডেনসেশন।

সতীশ কুমারের কোম্পানির নাম Hydroxy Systems Pvt Ltd। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মন্ত্রকের অধীনে এই সংস্থা তৈরি করেছেন তিনি।এই সংস্থার মাধ্যমেই তিনি পেট্রল বানান। তাঁর ভাষায়, ” প্লাস্টিককে প্রথমে ডিজেলে পরিণত করা হয়। তারপর অ্যাভিয়েশন ফুয়েল ও সবশেষে পেট্রল।” প্রফেসর আরও জানান, ৫০০ কেজি নন রিসাইকেবল প্লাস্টিক থেকে ৪০০ লিটার জ্বালানি বানানো যায়। এতে জলের কোনও প্রয়োজন হয় না, বর্জ্য জল ও তৈরি হয় না। যেহুতু প্রক্রিয়াটা ভ্যাকুয়ামে হয় কাজেই বায়ুদূষণেরও কোনও সম্ভাবনা ও নেই। ২০১৬-র শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত তিনি ৫০ টন প্লাস্টিককে পেট্রলে পরিণত করেছেন।

নিউজ ১৮ এ প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী প্রতিদিন ২০০ কেজি প্লাস্টিক থেকে ২০০ লিটার পেট্রল বানাচ্ছেন সতীশ কুমার। স্থানীয় কারখানায় ৪০-৫০ টাকা লিটার প্রতি এই পেট্রল বিক্রি হয়। তবে গাড়িতে এই পেট্রল ব্যবহার করা যায় কী না, এখনও তা পরীক্ষা করা হয়নি। PVC ও PET ছাড়া সবরকমের প্লাস্টিকই ব্যবহার করা যায়। পরিবেশেকে দূষণমুক্ত করতেই সতীশের এই বিশেষ অভিনব পদক্ষেপ।