নয়াদিল্লি: সাধারণত প্রথমবার কেউ চাকরিতে যোগদান করলে তাদের পিএফ অর্থাৎ প্রভিডেন্ট ফান্ড (Provident Fund)সম্পর্কে খুব কম জ্ঞান থাকে। তাদের বেতন থেকে প্রতি মাসে টাকা কেটে নেওয়া হয়, তবে তাদের পিএফ অ্যাকাউন্টে কত টাকা জমা হচ্ছে সে ব্যাপারে তারা জানতে পারে না। অনেক সময় অফিসে সময় না থাকার কারণে তারা এদিকে মনোযোগ দিতে পারে না। পিএফ অ্যাকাউন্টে আমানতের পরিমাণ যাচাই করার কয়েকটি সহজ উপায় রয়েছে যার সাহায্যে আপনি কয়েক মিনিটের মধ্যে আপনার পিএফ অ্যাকাউন্টের জমা দেওয়া টাকার পরিমাণ জানতে সক্ষম হবেন।

আপনি মেসেজের মাধ্যমে আপনার পিএফ (PF) অ্যাকাউন্টের তথ্যও পেতে পারেন। এর জন্য, আপনাকে পিএফ অ্যাকাউন্টের সঙ্গে রেজিস্টার্ড করা মোবাইল নম্বর থেকে 7738299899 নম্বরে মেসেজ করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে EPFOHO UAN লিখে মেসেজটি পাঠাতে হবে। মেসেজ পাঠানোর মাত্র এক মিনিটের পরে আপনার ফোনে ইপিএফও থেকে একটি মেসেজ আসবে, এতে আপনার পিএফ ব্যালেন্স এবং শেষ আপডেট সম্পর্কে সমস্ত তথ্য লেখা থাকবে।

এটি ছাড়াও আপনি অনলাইন পোর্টাল থেকে পিএফ সম্পর্কিত তথ্য পেতে পারেন। ইপিএফ-এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট www.epfindia.com এ গিয়ে আপনার বিবরণ দিয়ে লগ ইন করে পিএফ সম্পর্কিত সমস্ত কিছু জানতে পারবেন।

আপনি যদি আপনার ইউএন নম্বরটি না জানেন তবে আপনি যে প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন সেখান থেকে আপনি এটি সম্পর্কে তথ্য পাবেন। এ ছাড়া আপনার বেতন স্লিপেও ইউএন নম্বর লেখা থাকে। এটি এক্টিভ করতে কয়েকটি পদক্ষেপ অনুসরণ করতে পারেন।

প্রথমত, আপনাকে ইপিএফও ওয়েবসাইটে যেতে হবে তারপর Services মেনুতে গিয়ে For Employee বিকল্পে ক্লিক করতে হবে। এটির পরে, Services পেজে Member UAN/Online Service বিকল্পে ক্লিক করতে হবে। এর পরে, আপনার স্ক্রিনে একটি লগইন পেজ খুলবে, যার নীচে অ্যাক্টিভেট ইউনিভার্সাল অ্যাকাউন্ট নম্বর (ইউএএন) বিকল্পটি থাকবে সেখানে ক্লিক করতে হবে। এখানে আপনার ইউএএন নম্বর, জন্ম তারিখ, মোবাইল নম্বর এবং ক্যাপচা পূরণের পরে Get Authorization Pin এ ক্লিক করতে হবে। এর পরে আপনার রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে একটি ওটিপি আসবে। এটি পূরণ করার পরে, আপনাকে সম্পূর্ণ যাচাই করতে হবে। তারপরে I Agree-তে ক্লিক করতে। এর পরে, UAN সক্রিয় হয়ে যাবে। ইউএএন নম্বরটি সক্রিয় করতে কমপক্ষে ছয় ঘন্টা সময় লাগে। এর পরে, আপনি পিএফ অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত সমস্ত কাজ করতে পারেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.