মেদিনীপুর:  সকাল থেকে করিমপুর, কালিয়াগঞ্জ এবং খড়গপুরে চলছে উপনির্বাচন। সকাল থেকে মোটামুটি শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট শুরু হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই বেশ কয়েকটি জায়গাতে বিক্ষিপ্ত ঘটনার কথা সামনে আসতে শুরু করে। কোথাও বিজেপি এজেন্টকে অপহরণের অভিযোগ তো কোথাও আবার খোদ বিজেপিকে মারধরের ঘটনায়। সব মিলিয়ে উত্তপ্ত বাংলার তিন বিধানসভা উপ নির্বাচনও। তবে বাংলায় যতই তৃণমূল সন্ত্রাস করুক না কেন, তিন বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজেপি ভালো ফল করবে বলে মনে করছে প্রেমচাঁদ ঝাঁ।

খড়গপুর বিধানসভা বিজেপি প্রার্থী প্রেমচাঁদ ঝাঁ। তাঁর দাবি, খড়গপুর সদর উপনির্বাচনে ভালো ফল করবে বিজেপি। আর তৃতীয় স্থানে থাকবে তৃণমূল। আজ সোমবার সকালে খড়গপুর পুরসভায় ভোট দিতে যান প্রেমচাঁদ। সেখানেই সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে নিজের জয় নিয়ে আশাবাদী প্রেমচাঁদ। তবে এই বিধানসভা কেন্দ্রে তাঁর প্রতিপক্ষ তৃণমূল নয় বলেই জানিয়েছেন তিনি। বিজেপি প্রার্থীর দাবি, আমার সঙ্গে লড়াই হবে কংগ্রেস প্রার্থীর। তবে এই লড়াইয়ে তৃণমূল তৃতীয় হবে।

উল্লেখ্য, এই আসনে তৃণমূলের প্রার্থী হয়েছেন খড়গপুর পুরসভার চেয়ারম্যান প্রদীপ সরকার। বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী চিত্তরঞ্জন মন্ডল। যদিও বিজেপি প্রার্থীর দাবি নিয়ে বিশেষ ভাবতে রাজি নন তৃণমূল প্রার্থী। পালটা তৃণমূলের মতে, শুধু খড়গপুরেই নয়, তিন বিধানসভা উপনির্বাচনেই জিতবে তৃণমূল।

উল্লেখ্য, রাজ্যের তিন বিধানসভা কেন্দ্রে উপ নির্বাচন চলছে। করিমপুর, কালিয়াগঞ্জ এবং খড়গপুরে চলছে উপনির্বাচন। তবে এই তিন বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে গোটা রাজ্যের নজর খড়গপুর এবং করিমপুরের উপর। খড়গপুর একটা সময়ের কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত ছিল। এই কেন্দ্রে কংগ্রেসের বর্ষিয়ান বিধায়ক ছিলেন জ্ঞান সিং সোহন পাল ওরফে চাচা। টানা ৯ বারের বিধায়ক তিনি। আর তাঁকে হারিয়ে প্রথমবারের জন্য রাজ্য বিধানসভার সদস্য হয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। সেই নির্বাচনে তৃতীয় হয়েছিলেন তৃণমূল প্রার্থী রমাপ্রসাদ তিওয়ারি। সেই ফলাফলের নিরিখে এদিন এমন দাবি করেছেন বিজেপি প্রার্থীর।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ