নয়াদিল্লি: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চলছে দিল্লি সহ বিভিন্ন এলাকায়। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে স্পষ্ট করে জানিয়ে দিলেও প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ছে। শাহিনবাগ-এর কেন্দ্র। এসবের মাঝেই দিল্লি বিধানসভা নির্বাচন। ফলে রাজনৈতিক উত্তাপও তুঙ্গে। এমনই পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি সাংসদ পারভেশ সাহিব সিং বর্মা জানালেন, দিল্লিতে ক্ষমতায় এলে মাত্র এক ঘণ্টার মধ্যে এই আন্দোলন দমিয়ে দেওয়া যাবে। পাশাপাশি বিক্ষোভকারীদের প্রসঙ্গে তিনি জানান, ” ওরা আপনার বাড়িতে ঢুকে বোন এবং মেয়েকে ধর্ষণ করবে।” তাই এই নির্বাচন যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ একটি নির্বাচন। নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে বিকাশপুরীর জনসভা থেকে এই মন্তব্য তিনি করেছেন।

এক মাসেরও বেশী সময় ধরে দিল্লির শাহিনবাগে চলছে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সমাবেশ৷ এতে যোগ দিয়েছেন বহুজন। বিক্ষোভ নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করাতে শিরোনামে এলেন বিজেপি সাংসদ। তাঁর মন্তব্যে শুরু হয়েছে আলোড়ন। বিশেষ করে ধর্ষণ সংক্রান্ত মন্তব্য করায় আরও বিতর্কিত পরিস্থিতি।

বিগত বেশ কয়েকটি রাজ্যের নির্বাচনী ফলাফলের ভিত্তিতে যথেষ্ট ব্যাকফুটে রয়েছে গেরুয়া শিবির। আর তাই দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এগোচ্ছে তারা। কিন্তু তারই মাঝে সাংসদের এই ধরনের মন্তব্যর ফলে আবারও যে গেরুয়া শিবির ফের বিতর্কের কেন্দ্রে। সাংসদ আরও জানান, নির্বাচনী ফলাফল বিজেপির অনুকূলে যায় তাহলে একমাসের মধ্যে কোন সরকারি জমিতে মসজিদ হতে তারা দেবেন না।

সাংবাদিকদের সামনে তিনি জানিয়েছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ শাহিনবাগে জড়ো হয়েছে। তারাই বাড়িতে প্রবেশ করে বাড়ির মা বোনের সম্মান নষ্ট করবে এবং খুন করবে। তাই এখনই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে জানানো হয়েছে পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে যে সব অমুসলিমরা ধর্মীয় নির্যাতনের শিকার হয়ে এদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছেন তাঁদের নাগরিকত্ব প্রদানের কথা জানানো হয়েছে। ফার্সি, জৈন,হিন্দু, খৃষ্টান, শিখ, বৌদ্ধ শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে ওই আইনে। আইনটি লাগু হওয়ার পর থেকে চলছে প্রতিবাদ। অ-বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি পর্যায়ক্রমে বাতি করছে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনটি। কেরল প্রথমে এই আইন প্রত্যাহারের বিষয়টি তাদের বিধানসভায় পাস করায়। আর সর্বশেষ পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা সেই তালিকায় এসেছে।