স্টাফ রিপোর্টার, দিনহাটা: উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়িতে মোদীর সভা৷ উত্তরবঙ্গের কোচবিহারে দিদির সভা৷ বুধবার এই জোড়া নির্বাচনী সভায় বক্তব্য রাখলেন মোদী-মমতা৷ একে অপরের বিরুদ্ধে করা তীক্ষ্ণ আক্রমনে বিদ্ধ হল উত্তরবঙ্গের মাটি৷ প্ল্যানিং ছিলই, উত্তরবঙ্গের মাটিতে দাঁড়িয়েই মোদীর আক্রমনের জবাব দেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আর তাই এদিনর শিলিগুড়িতে মোদীর সভার পর দিনহাটায় বক্তব্য রাখবে মমতা বলেই ঠিক হয়ছিল৷ সেইমতই মোদী যখন ব্রিগেডে পৌছে বক্তব্য রাখতে শুরু করেছেন তখনই মঞ্চে মাইক হাতে তুলে নিলেন মমতা৷

এদিন নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পর দিনহাটায় সভা শুরু করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ যদিও সবসময় দেখা যায়, নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই তিনি মঞ্চে এসে উপস্থিত হন৷ কিন্তু এদিন তার অন্যথা ঘটল৷ আর তার কারণ হিসেবে মঞ্চে উঠেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে দায়ি করলেন মমতা৷ তাঁর অভিযোগ, ‘‘এয়ারপোর্টে এসে ৪০ মিনিট ধরে বসে রয়েছি৷ বাগডোগরা এয়ারপোর্টে ভিআিপি মুভমেন্টেরজন্য এতদেরি হল৷’’ শুধু তাই নয়, এদিন মমতার কটাক্ষ, ‘‘ভারতবর্ষে শুধু একজনেরই নিরাপত্তা রয়েছে৷’’ পাবলিক হ্যারাশমেন্ট নিয়েও এদিন মোদীর বিরুদ্ধে সরব হন মমতা৷ তাঁর কথায়, ‘‘উনি যত ইচ্ছে সিকিউরিটি নিক না, কিন্তু সাধারণের অসুবিধে করে কেন?’’

এরপরই তিনি কোচবিহার নিয়ে কিছু স্মৃতিচারণ করেন৷ ছাত্র আন্দোলনের সময় থেকে তিনি কোচবিহারে আসেন বলেও এদিন দাবি করেন মমতা৷ তাঁর কথায় এদিন উঠে আসে ছিটমহলবাসীর প্রসঙ্গ৷ মাত্র দেঢ় মাসের মদ্যে তিনি ছিটমহল সমস্যার সমাধান করেন বলে দাবি করেন৷ পাশাপাশি তাঁর বক্তব্য উঠে আসে কোচবিহারের উন্নয়নের প্রসঙ্গও৷

এদিন নিজের বক্তব্যে কথা রেখেছেন মমতা৷ যেমন কথা ছিল, উত্তরবঙ্গের মাটিতে দাঁড়িয়েই তিনি জবাব দেবেন মোদীর আক্রমণাত্মক ভাষণের৷ তাই করলেন৷ লিস্ট মিলিয়ে মিলিয়ে যেন শিলিগুড়িতে মোদীর করা আক্রমণের প্রতিউত্তর দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ উত্তরবঙ্গের মাটিতে এদিন কার্যত প্রধানমন্ত্রীকে মিথ্যেবাদী প্রমাণ করে ছাড়লেন মমতা৷ মমতার কথায়, ‘‘১০০দিনের কাজে বাংলাই সেরা৷ ওদের সরকারের খাতায় তার প্রমাণ রয়েছে৷ আর তিনিই কিনা বলেন আমরা গরিবদের জন্য কিছু করি না৷ এত ভুরি ভুরি মিথ্যা কথা বলা প্রধানমন্ত্রী আগ কখনো দেখিনি৷’’

শুধু তাই নয়, এদিন প্রধানমন্ত্রীকে আবারও ‘ওপেন চ্যালেঞ্জ’ জানালেন মমতা৷ তাঁর দাবি, ‘‘আমার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ আপনার, তো সন্মুখ সমরে আসুন৷ আপনি প্রশ্ন করবেন আমি উত্তর দেব৷ সাহস থাকলে তা সত্যি করে দেখান৷’’ বাংলায় বিজেপির প্রার্থী দেওয়া নিয়েও এদিন প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করতে ছাড়েনি তৃণমূল নেত্রী৷ কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিকের নাম করে মমতা বলেন, ‘‘আমরা যাকে তাড়িয়ে দিয়েছি তাদেরকে টিকিট দিয়েছে বিজেপি৷ যাদের বিরুদ্ধে সিবিআই মামলা চলছে সেইসব লুঠেরাদের টিকিট দিয়েছে৷ আবার বড় কথা বলছে এক্সপায়ারিবাবু৷’’

এদিন কোচবিহারের মাটি থেকে প্রথম নির্বাচনী প্রচার শুরু করলেন মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়৷ আর প্রথমদিনেই তাঁর ভাষণে বুঝিয়ে দিলেন বিজেপি আর নয়৷ কোচবিহারের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী পরেশ অধিকারীকে ভোট দেওয়ারও আবেদন করেন মমতা৷ পাশাপাশি কোচবিহারবাসীকে বুঝিয়ে দিলেন তৃণমূলই একমাত্র ুন্নয়নের কান্ডারি৷ তৃণমূল সরকারের আমলে যা যা উন্নয়ন হয়েছে তা আর কেউ করতে পারবে না বলেও এদিন দাবি করেন মমতা৷