দেবময় ঘোষ: সার্জিকাল স্ট্রাইক কী শুধু মোদীই করতে পারেন৷ ইউপিএ সরকারের আমলে যে ১০টি স্ট্রাইক হয়েছে তার খবর রাখে সারা দেশ? লোকসভা নির্বাচন চলাকালিন সারা দেশেই ইউপিএ সরকারের আমলে হওয়া সার্জিকাল স্ট্রাইকের চর্চা শুরু হোক – প্রকাশ্যে না হলেও প্রচ্ছন্নে চেয়েছে কংগ্রেস৷ তবে সামরিকস্তরে অনেকেরই মতামত, ২০১৬ সালে উরি হামলার পর নরেন্দ্র মোদীর নির্দেশে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে সেনার স্পেশাল ফোর্স যে হামলা চালিয়েছিল – তা অন্যান্য হামলা থেকে অনেকটাই আলাদা৷ যাকে সার্জিকাল স্ট্রাইক বলা চলে৷

২০১৬ সালের সার্জিকাল স্ট্রাইকের সঙ্গে ইউপিএ আমলের স্ট্রাইকের কিছু মৌলিক পার্থক্য বিশেষজ্ঞরা খুঁজে পেয়েছেন৷ সাধারণত, নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে সেনার গোপন আক্রমণের পরিকল্পনা হয় ব্যাটেলিয়ন, ব্রিগেড কিংবা ডিভিশনস্তরে৷ কিন্তু ২০১৬ সালের সার্জিকাল স্ট্রাইকের পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকেই হয়েছে৷ মোদী সরকারের সিনিয়ার মন্ত্রীরা অনেকেই এই স্ট্রাইকের খবর জানতেন না৷ সেনা প্রধান দলবীর সুহাগ সহ সেনার সিনিয়ার অফিসাররা এই আক্রমণের পিছনে মস্তিষ্ক লাগিয়েছিলেন৷

লেফট্যানেন্ট জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) ডি এস হুডা, প্রাক্তন নর্দান আর্মি কমান্ডার সার্জিকাল স্ট্রাইকের পরিকল্পনায় যুক্ত ছিলেন৷ কিছুদিন আগেই সংবাদমাধ্যমে তিনি জানিয়েছিলেন, নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে সেনার গোপন আক্রমণ আগেও হয়েছে৷ কিন্তু ২০১৬ সালে উরি হামলার পর পাক অধিকৃত কাশ্মীরে সেনা যে সার্জিকাল স্ট্রাইক করেছিল তা নানা দিক থেকে আলাদা৷ সুযোগ এবং কার্যকারিতা তাকে অন্য অপরেশনগুলির থেকে আলাদা করে দিয়েছে৷ এছা্ড়া এই প্রথমবার সরকার সরাসরি ওই অপরেশনের দায়িত্ব কাঁধে নিয়েছে৷

উল্লেখযোগ্যে সেনার তরফ থেকে সার্জিকাল স্ট্রাইকের পর সাংবাদিক সম্মেলন করা হয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র সংসদে সর্বদলের প্রতিনিধিদের বিষয়টি জানিয়েছিলেন৷ ইউপিএ সরকারের আমলে যে ১০টি স্ট্রাইক হয়েছে তা গোপন থেকে গিয়েছে৷ থেকে গিয়েছে অপ্রকাশিত সত্য হিসেবে৷ উরি ক্যাম্পের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল শ্রীনগরের ১৫ কর্প৷ লেফট্যানেন্ট জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) সতীশ দুয়া ওই কর্পের দায়িত্বে ছিলেন৷ পরে তিনি জানিয়েছিলেন, পুরো ওয়েস্টার্ন কমান্ডকে সজাগ ছিল৷ পাকিস্তান পালটা আক্রমণ করতে এলেই জবাব পেত৷

অনেক প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞ বলেছেন, সেনার ক্ষমতা প্রশ্নাতীত৷ কিন্তু দেশে রাজনৈতিক সচেতনতা প্রয়োজন৷ মোদী সরকার যদি সফলভাবে সার্জিকাল স্ট্রাইক করতে পারে তবে এটি অবশ্যই কৃতিত্বের৷ একমাত্র সাহসী নেতারাই এই কাজ করতে পারে৷ সার্জিকাল অবশ্যই অকটি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত৷ পুলওয়ামা হামলার পর পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইক চালানো ঘটনাও নরেন্দ্র মোদীর রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত৷