স্টাফ রিপোর্টার, নন্দীগ্রাম : একেবারে যেন ছোটবেলায় মা -ঠাকুমার কাছে শোনা রূপকথার গল্প । যেখানে আমরা শুনতে পেতাম রাজার বাড়িতে চোর চুরি করতে গিয়ে আরামদাযক বিছানা পেয়ে সেখানেই ঘুমিয়ে পড়েছে। ফলস্বরুপ পরদিন সকালে দেখা যায় রাজার মন্ত্রীরা এসে চোরকে ধরে নিয়ে যায় বধ্যভূমিতে গর্দান দিতে।

পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামের ক্ষেত্রেও রূপকথার গল্প কোথাও যেন মিলে গেল৷ পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে নন্দীগ্রামের একটি শীতলা মন্দিরে চুরি করতে এসে রাতে ওই মন্দিরেই ঘুমিয়ে পড়েছিল চোর। শুক্রবার সকালে সেই কীর্তিমান চোরকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন গ্রামবাসীরা। তারপর থেকে অভিযুক্ত চোরের জায়গা হয় শ্রীঘরে৷

আরও পড়ুন : সেনা-বিএসএফের থেকে তথ্য চুরি করত এই পাকিস্তানি চর…

ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে পূর্বমেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রামের বাবুখাবার নামক এলাকার একটি শীতলা মন্দিরে। স্থানীয় গ্রামবাসীদের কথায়, গ্রামে একটি শীতলা মন্দির রয়েছে। সেই মন্দিরেই বৃহস্পতিবার গভীররাতে চুরি করতে আসে অভিযুক্ত চোর প্রদীপ জানা। গ্রামবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে ধৃত চোরের বাড়ি পাশের গ্রাম তিলক বৃন্দাবনপুরে।

জানা গিয়েছে, সাতসকালে মন্দিরের পিতলের আসবাবপত্র এবং বেশ কিছু মুল্যবান জিনিসপত্র চুরি করে পালিয়ে না গিয়ে সকাল হতে অনেক দেরি আছে ভেবে মন্দিরের মধ্যেই ঘুমিয়ে পড়ে সে। সকাল হতেই মন্দিরের ভিতর এই কীর্তিমানকে ঘুমিয়ে থাকতে দেখতে পান গ্রামবাসীরা। তারপরেই গ্রামবাসীর তরফে খবর যায় নন্দীগ্রাম থানায়। পরে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে চোরকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

আরও পড়ুন : ভারত সীমান্ত থেকে পাকিস্তান নাম মুছে দিল শেখ হাসিনার সরকার

নন্দীগ্রাম থানার ওসি অজিত ঝাঁ জানিয়েছেন, এলাকার মানুষের অভিযোগের ভিত্তিতে, ওই যুবককে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে তাঁদের হেপাজতেই রয়েছে অভিযুক্ত। চুরির বিষয়ে যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এদিকে চুরির ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে গ্রামবাসীদের মধ্যে। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, বারবার চুরি নিয়ে বেশ চিন্তায় রয়েছেন তাঁরা৷