স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: একই রাতে দুটি বড় চুরির ঘটনা ঘটেছে কোচবিহারে৷ একটি কম্পিউটারের শোরুমে বড়সড় চুরির ঘটনা ঘটে৷ পাশাপাশি একটি বস্ত্র বিপনীতেও চোরেরা ক্যাস বাক্স ভেঙে টাকা নিয়ে চম্পট দেয়৷

জানা গিয়েছে, কোচবিহার শহরের রাজমাতা দিঘি সংলগ্ন এলাকায় একটি কম্পিউটার দোকান থেকে লক্ষাধিক টাকার কম্পিউটার ও কম্পিউটার যন্ত্রাংশ চুরির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ কম্পিউটারের শোরুমের তালা ভেঙে ভিতরে ঢুকে ১৩ টি ল্যাপটপ ও কয়েক লক্ষ টাকার কম্পিউটার সামগ্রী নিয়ে দুষ্কৃতীরা চম্পট দেয় বলে খবর৷

এদিন সকালে দোকান খুলতে এসে দোকান মালিক দেখেন দোকানের শাটারের তালা ভাঙা রয়েছে, পরে দোকানে ঢুকে দেখেন ল্যাপটপ সহ বিভিন্ন সামগ্রী চুরি গিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দোকান মালিক৷ পরে কোতয়ালি থানার পুলিশকে জানানো হয়, পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷

অন্যদিকে কোচবিহারের সুনীতি রোডে বস্ত্র বিপনীতেও চুরির ঘটনা ঘটে, ওই দোকানের ক্যাস বাক্স ভেঙ্গে সেখানে থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা চুরি হয় বলে অভিযোগ৷ বস্ত্র প্রতিষ্ঠানের মালিক সুরজ ঘোষ জানান, “কি করে দুষ্কৃতীরা দোকানের ভিতরে ঢুকে চুরি করেছে, তা পরিষ্কার নয়৷ তবে এদিন সকালে দোকান খোলার পর দেখা যায় ক্যাস বাক্স ভেঙে হাজার দশেক নগদ টাকা নিয়ে গেছে দুষ্কৃতীরা৷” তবে চোরেরা জামা কাপড় নিয়েছে কিনা, সেটা বুঝতে পারছেন না দোকানের মালিক৷ একই দিনে দুটি দোকানে চুরির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ব্যবসায়ী মহলে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।