সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, হাওড়া : দামোদর বয়ে গিয়েছে গ্রামের পাশ দিয়ে। পথটা হঠাৎ নেমে গিয়েছে মাঠের দিকে।সবুজ মাঠের মধ্যে দিয়ে সরু রাস্তা। বিশাল ঝুড়ি নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে প্রায় ২০০ বছরের এক বট গাছ। গ্রামের এমনই হাজারও বট গাছকে বাঁচাতে নেমে পড়েছেন এক মহিলা। তার লড়াই চলেছেন বাস্তুতন্ত্রকে ঘিরে। অস্ত্র বট গাছ।

গ্রাম্য হাওড়ার গৃহবধূ মনে করেন, একটি গাছ যদি একটি প্রাণের সমান হয় তাহলে একটি বট গাছ একটা বাস্তুতন্ত্রকে ধরে রাখে। ইট কাঠ পাথরের অট্টালিকার চাপে ক্রমে ভেঙে পড়া বাস্তুতন্ত্রকেই বাঁচানোর জন্য লড়েছেন জয়িতা কুণ্ডু কুন্তি। গ্রামের গৃহবধূ কোমর বেঁধে নেমেছেন এই ধ্বংসলীলা রদ করতে। তাঁর প্রায় একার চেষ্টায়, যত্নের আচ্ছাদন ঘিরে রেখেছে গ্রামীণ হাওড়ার দামোদরের তীরের বহু বট গাছকে। প্রথমে সারা না মিললেও গত বছর চারেকের চেষ্টায় ধীরে ধীরে সাহায্য মিলছে প্রশাসনের থেকেও। এই বট গাছ বাঁচাতে গিয়েই জয়িতা বানিয়ে ফেলেছেন মাধবপুর চেতনা সমিতি নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা যা প্রকৃতি বাঁচাতে কাজ করছে।

মাধবপুর গ্রামটি উলুবেড়িয়া ১ নম্বর ব্লকের চণ্ডীপুর পঞ্চায়েতের মহিষরেখা দামোদর ব্রিজের কাছে৷ সমিতির সদস্যরা ওই গ্রামেরই প্রাচীন বট গাছকে বাঁচিয়ে রাখতে ঝুরি সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে৷ সমিতির সম্পাদিকা জয়িতা কুণ্ডু বলেন , একটা বট গাছ একটা বাস্তুতন্ত্রের ধারক। গাছের কুঠুরিতে পিঁপড়ে, সাপ, পাখি বাস করে। এভাবেই একটা ইকোসিস্টেমকে ধরে রাখে বট গাছের মতু বড় গাছ। তার ঝুরি মাটি ছোঁয়ার আগেই কেটে নেওয়া হয়। ফলে ক্রমশ বাড়তে থাকা বটের ডালও ঝুরির আশ্রয় না পেয়ে এক সময় ভেঙে পড়ে৷ এ ভাবে গাছের জীবনীশক্তির উপরই আঘাত নেমে আসছে৷ তাই আমরা ওই সব ঝুরি সংরক্ষণ করে বট গাছ বাঁচিয়ে রাখার উদ্যোগ নিয়েছি।”

একইসঙ্গে তিনি বলেন , “গাছের এই শীতে বসত চড়ুইভাতির আসর৷ কাঠকুটো জ্বালিয়ে চলত নানারকম অসামাজিক কাজকর্ম। সেটা আমরা অনেকটা বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে প্রশাসনও।” পুরনো গাছের বেশ কিছু ঝুরি ফাঁপা বাঁশের সাহায্যে সংরক্ষণ করা হচ্ছে৷ পাশাপাশি ফ্লেক্স ছাপিয়ে বটগাছ সংরক্ষণের আবেদন জানিয়েছে সমিতি৷ মাধবপুরে দামোদরের পাড়ে মহিষরেখা রেল ব্রিজের অদূরে প্রায় প্রাচীন বট গাছের প্রতিটি বাড়ন্ত ঝুরিতে পরম যত্নে পরিয়ে দেওয়া হচ্ছে ফাঁপা বাঁশের বর্ম৷ সেই বাঁশ পুঁতে তার ভিতর দিয়ে নির্বিঘ্নে শিকড়টি বেড়ে যাতে মাটি পেতে পারে , তা নিশ্চিত করা হচ্ছে৷ এই গাছটির আগে ওই এলাকাতেই আরও একটি বটেরও ঝুরি সংরক্ষণের কাজ করেছেন জয়িতারা৷