স্টাফ রিপোর্টার, সিঙ্গুর: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃত যুবক হুগলির সিঙ্গুরের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে।

পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত যুবকের নাম চন্দন ভট্টাচার্য। তিনি সিঙ্গুরেরই বাসিন্দা এবং সেখানকার এক তৃণমূল নেতার আত্মীয়। যদিও তার ফেসবুক মোদি ও আরএসএস বন্দনায় ভর্তি। এমনকী আপত্তিকর পোস্টের নিচে ‘জয় ভবানী’ বলে উপসংহার টানা হয়েছে। বুধবার ওই যুবকের গ্রেফতারের পরই তৃণমূলীদের মধ্যে তীব্র রোষ ছড়িয়ে পড়ে। তাকে আদালতে তোলার পথে তৃণমূল কর্মীরা বিক্ষোভ দেখায়। পুলিস ভ্যান থেকে তাকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টাও করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন ধৃতের হয়ে কোনও আইনজীবী আদালতে সওয়াল করেননি। তৃণমূলের তরফে এবং সরকারি আইনজীবীরা সওয়াল করেন। আদালত ওই যুবককে পাঁচদিনের পুলিস হেফাজতের নির্দেশ দেয়।

গত ২৯ অক্টোবর সামাজিক সম্মান নষ্ট ও সম্প্রীতির আবহ নষ্ট করার চেষ্টার অভিযোগ তুলে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের হুগলি জেলা সভাপতি শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায় এফআইআর করেছিলেন এই যুবকের বিরুদ্ধে। অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, কালীপুজোয় নিজের বাড়িতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভোগ রান্না প্রসঙ্গে ফেসবুকে অত্যন্ত অশালীন (গালিগালাজ ও হীন মন্তব্য) পোস্ট করেছেন চন্দন। শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘গত ২৮ অক্টোবর চন্দন ভট্টাচার্য কমেন্ট পোস্ট করেছিলেন। ওঁর লোকেশন ট্র্যাক করা যায়নি প্রথমে। পরের দিন জানা যায়, উনি সিঙ্গুরের বাসিন্দা। এরপরই অভিযোগ জানাই’’।

উল্লেখ্য, এর আগেও বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে ‘অশালীন’ পোস্ট করার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে বেশ কয়েকজনকে। কিছুদিন আগে মমতার ছবি বিকৃত করার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছিল বিজেপিকর্মী প্রিয়াঙ্কা শর্মাকে। এ নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়। সাম্প্রতিককালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শাসকদলের বিরুদ্ধে ফেসবুকে মুখ খোলায় কংগ্রেস নেতা সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এই ঘটনায় তোলপাড় হয় রাজ্য রাজনীতি।