তেহরান: পিতা তথা ইরানি সেনার অন্যতম কর্তা সোলাইমানির মৃত্যু হয়েছে মার্কিন বিমান থেকে হামলায়। ইরাকের মাটিতে সেই হামলার পর থেকে প্রবল গরম হাওয়া বইছে পারস্য উপসাগর এলাকায়। হামলার বদলায় ইরান একাধিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ছে ইরাকের মার্কিন সেনাঘাঁটিতে।

এই পরিস্থিতিতে ফের একবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিলেন নিহত কমান্ডার সোলাইমানির কন্যা জেইনাব।

পিতার স্মরণে শোকসভায় জেইনাব অস্ত্র হাতে করেই ভাষণ দেন। ইরানি সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, অস্ত্র হাতে নিয়ে শোকসভায় বলা একটি রীতি। জেইনাব সেটি পালন করেছেন।

জেইনাব বলেন, বাবাকে মেরে আমেরিকা সবচেয়ে বড় বোকামি করেছে। এর ফলে ইরান ও বিশ্বের স্বাধীনচেতা মানুষ জেগে উঠেছেন।

তিনি বলেন, আমার বাবা সোলাইমানি গোটা বিশ্বকে আবারও দেখিয়ে গেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় শয়তান। জেইনাবের সঙ্গে দেখা করেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি।

সোলেমানির মৃত্যুর পর থেকেই উত্তপ্ত পরিস্থিতি। বারবার সংঘাতের খবর আসছে। কিভাবে ইরান এর প্রতিশোধ নেবে তা জানার জন্য আমেরিকা শুরু করেছে নানান পরিকল্পনা।

যে কোনও মুহূর্তে বেঁধে যেতে পারে আমেরিকা এবং ইরানের মধ্যে ভয়ঙ্কর যুদ্ধ। যখন গোটা বিশ্ব যুদ্ধের প্রহর গুণছে। ইরানের মসজিদের চূড়ায় ‘যুদ্ধের লাল ঝাণ্ডা’ ওড়ানো হয়েছে। যুদ্ধের জন্যে আমরা প্রস্তুত…লাল ঝান্ডা উড়িয়ে আমেরিকাকে বার্তা দিয়েছে তেহরান।