স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া : কৃষিপ্রধান গ্রাম আমতার উদং,ফতেপুর,তাজপুরের মতো দামোদর তীরবর্তী জনপদগুলি।কৃষকরা দিনের পর দিন অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে নীরবে নিভৃতে ফসল ফলিয়ে যান।কিন্তু সেইসমস্ত বঞ্চিত মানুষকে সম্মান জানাতেই প্রায় চার দশক আগে উদং গ্রামের কিছু উদ্যোমী যুবক চালু করেছিলেন গ্রামীণ কৃষি ও হস্তশিল্প মেলা।উদং যুবক সংঘ পরিচালিত এই গ্রামীণ কৃষি মেলা এবার ৪৭ তম বর্ষে পদার্পণ করল।

প্রাচীন ঐতিহ্য অনুযায়ী প্রতিবছরের মতো এবছরও সুশোভিত প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে স্থানীয় কৃষক বন্ধুদের ফলানো বিভিন্ন ফসল। স্থান পেয়েছে ৮-১০ কেজি সাইজের বেশ কিছু ফুলকপি,বৃহৎ আকারের মুলো,হলুদ বাঁধাকপিসহ একাধিক কৃষিজ দ্রব্য।তার সাথে সাথে রয়েছে বিভিন্ন রং বেরংঙের ফুল।পাশাপাশি প্রদর্শিত হচ্ছে হস্তশিল্প।এছাড়াও,এই কৃষি মেলাকে কেন্দ্র করে চারদিন ব্যাপী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মেলার আয়োজন করা হয় বলে জানিয়েছেন মেলার সম্পাদক সজল ধাড়া।

নেতাজি প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও জলাদেওড়া থেকে অনুষ্ঠান স্থলপর্যন্ত অনুষ্ঠিত পথদৌড় প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে এবছর অনুষ্ঠানের সূচনা ঘটে।রয়েছে সঙ্গীত,নৃত্য,নাটক,আলোচনাসভা,লেটো ভাঁড়যাত্রার মতো বিভিন্ন অনুষ্ঠান।স্থানীয় বাসিন্দা পৃথ্বীশরাজ কুন্তীর কথায়, ‘গ্রাম বাংলার কৃষি,পরিবেশ ও সংস্কৃতিকে এক সূত্রে বাঁধতে এই মেলা অনন্য ভূমিকা গ্রহণ করে আসছে দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে।’