ঢাকা: আসন্ন ঢাকা নির্বাচনের খরচের হিসেব জানিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন। এবার নির্বাচন পরিচালনা করতে মোট খরব হবে প্রায় ৬০ কোটি টাকা। গত বার সিটি নির্বাচন সম্পন্ন করতে খরচ হয়েছিল এর তিন গুণ কম। প্রতি কেন্দ্র ইভিএমের জন্য ক্রচ করা হয়েছে তিন লক্ষ টাকা।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, নির্বাচন বাবদ বিভিন্ন খাতে খরচ হবে। আইন শৃঙ্খলা, পরিচালনা, প্রশিক্ষণ ইত্যাদি মিলিয়ে এবার খরচ হতে পরে প্রায় ৬০ কোটি টাকা। এর আগে ২০১৫ সালে সিটি ভোটে খরচ হয়েছিল অনেকটাই কম। এবার পুরো ভোট গ্রহণ হবে ইভিএমে।

১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি নির্বাচন। কীভাবে ইভিএম ব্যবহার করতে হবে সে ব্যাপারে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে এগিয়ে এসেছে নির্বাচন কমিশন। এমন কি সোশ্যাল মিডিয়াতেও ইভিএম সম্পর্কে সচেতনতা মূলক বার্তা দিয়ে চলেছে কমিশনের কর্তারা। আগামী দিনে সিনেমা হলে চিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমেও ইভিএম প্রশিক্ষণ চালিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

হাইকোর্ট নির্বাচন পেছানোর ব্যাপার খারিজ করলে বাংলাদেশে গণআন্দোলন গড়ে ওঠে। পরে নির্বাচন পিছিয়ে ৩০ জানুয়ারির বদলে ১ ফেব্রিয়ারির ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এবারের ভোট সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন করে উদ্যোগী হয়েছে কমিশন। সন্ত্রাস হলে ঘটনা স্থলে দোষীকে গ্রেফতার করা হবে বলে কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে।