স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: নিজের ৪৩ তম জন্মদিনে মরনোত্তর দেহদান এবং চক্ষুদানের অঙ্গীকার করলেন বারাকপুরের তৃণমূল নেতা সম্রাট তপৎদার। তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ এই তৃণমূল নেতা কামারহাটি সাগরদত্ত মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে গিয়ে সেখানে মরনোত্তর দেহ দানের অঙ্গীকার পত্রে স্বাক্ষর করেন। এরপর তিনি বারাকপুরের এক খ্যতনামা চক্ষু চিকিৎসা কেন্দ্রে এসে মরনোত্তর চক্ষুদানের অঙ্গীকার পত্রেও স্বাক্ষর করেন।

আরও পড়ুন: পুলিশের সামনেই ফাটল চকোলেট বোমা, ভলান্টিয়ারের পিছনে দোদমা

সমাজসেবী হিসেবে বারাকপুরে যথেষ্টই সুখ্যাতি রয়েছে সম্রাট বাবুর। তার পরিবারে স্ত্রী ও পুত্র সন্তান বর্তমান। একসময় বারাকপুরের কংগ্রেস নেতা ছিলেন তিনি। পরে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। সম্রাট বাবু তার পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করেই মরনোত্তর দেহ ও চক্ষুদানের অঙ্গীকারপত্রে স্বাক্ষর করেছেন বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: ভুয়ো খবরের নেপথ্যে জাতীয়তাবাদী শক্তি: বিবিসি

বারাকপুর নাপিত পাড়ার বাসিন্দা সম্রাট তপাদার বলেন, ‘‘আমাদের দেশে যে কোন মানু্ষের গড় আয়ু যদি ৮০ বছর ধরা যায়৷ তবে আমার জীবনের অর্ধেকের বেশি সময় আমি পার করে এসেছি। আমরা যে যতই মানু্ষের জন্য কাজ করি না কেন৷ বা মানুষের পাশে থাকি না কেন৷ মানুষ হিসেবে আমাদের প্রকৃত মূল্যায়ন হয় মৃত্যুর পরে। আমার মনে হয় মৃত্যুর পরে আমার দেহটা যদি চিকিৎসা শাস্ত্রে কাজে লাগে বা আমার চোখ দিয়ে যদি অন্য কেউ পৃথিবীটাকে নতুন করে দেখতে পায়৷ তবে তার থেকে ভালো কিছু হতে পারেনা। সেই কারনেই আমার এই সিদ্ধান্ত৷ যাতে আমার শরীরটা চিকিৎসা শাস্ত্রে কাজে লাগতে পারে।’’

আরও পড়ুন: ক্যালিফোর্নিয়ার দাবানলে অন্তত ৪২ জনের মৃত্যু