কলকাতা: জলপথে যাত্রীদের সুরক্ষা দিতে জলসাথী নিযুক্ত করতে চলছে রাজ্য সরকার৷ এবার ঘাটগুলিতে যাত্রীদের নিরাপত্তা আরও বাড়াতে আগামী এক মাসের মধ্যে ছোট-বড় মিলিয়ে ২৭৯টি ঘাটে এই জলসাথী পদে কর্মী নিয়োগ করবে সরকার৷ ঘাটগুলিতে যাতে এসওপি মেনে যাত্রী পারাপার করা হয়, তা দেখাই প্রধান কাজ হবে জলসাথীদের৷ জলসাথী নিযুক্ত করার জন্য টেন্ডার ডেকে এজেন্সি বাছাইয়ের কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়ে গিয়েছে বলে পশ্চিমবঙ্গ পরিবহণ নিগম সূত্রে খবর৷

নিগমের এক কর্তা বলেন, জলপথের সুরক্ষা বিধি নিয়ে আগে কোনও গাইডলাইন ছিল না৷ সেই গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে৷ তা বাস্তবায়নে টাকাও বরাদ্দ করা হয়েছে৷ ঘাটগুলিতে যেমন সুরক্ষা বাড়ানো হচ্ছে, তেমনই ভুটভুটির বদলে সুরক্ষিত, বৈধ জলযান নামানোর জন্য জলধারা প্রকল্পে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হচ্ছে৷ জলযানের দামের ৩০ শতাংশ বা সর্বাধিক এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত আর্থিক সুবিধা দেওয়া হবে এই প্রকল্পে৷ গতিধারা প্রকল্পের মতোই এই প্রকল্পটিও আগামীদিনে জনপ্রিয় হবে বলে আশাবাদী নিগমের কর্তারা৷

ঘাটগুলিতে ‘মডেল স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর’ নির্দিষ্ট করে দিয়েছিল রাজ্য সরকার৷ সেখানে সিকিউরিটি লক তৈরি থেকে শুরু করে একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল৷ যাত্রীদের সুরক্ষায় লাইফ জ্যাকেট পরে পারাপারের কথাও বলা হয়েছিল৷ এর জন্য অর্থও বরাদ্দ হয়েছে৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও