ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রণালয় রাজ্যের খরাক্লীষ্ট এলাকা গুলিতে জল সমস্যা সমাধানের জন্য আটশো কোটিরও বেশি টাকা বরাদ্দ করেছে। ইতিমধ্যে সেই বরাদ্দের পঞ্চাশ শতাংশ রাজ্যকে পাঠিয়েও দিয়েছে কেন্দ্র। অভিযোগ, কেন্দ্রের দেওয়া সেই অর্থ থেকে দক্ষিণ দিনাজপুরের জলকষ্ট দূরীকরণের লক্ষ্যে কোনও বরাদ্দ রাজ্যের তরফে করা হয়েছে কি না তা নিয়ে ধোঁয়াশার সৃস্টি হয়েছে।

এলাকার সাংসদ এই ব্যাপারে জানতে চেয়ে জেলাশাসক থেকে শুরু রাজ্যের সংশ্লিষ্ট দফতরের মন্ত্রী সকলের কাছে মেইল মারফত চিঠি পাঠালেও আজ অবধি তার কোনও সদুত্তর পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ। যদিও এই ব্যাপারে জেলাশাসকের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপির সাংসদ ডঃ সুকান্ত মজুমদার সংসদে দাঁড়িয়ে দক্ষিণ দিনাজপুরের তপন ও হরিরামপুর ব্লকের জল সমস্যার কথা তুলে ধরেন। সাংসদের প্রশ্নের জবাবে জলশক্তি মন্ত্রালয়ের পক্ষ থেকে ১৮ নভেম্বর লিখিত ভাবে জানানো হয় যে ২০১৯-২০২০ আর্থিক বর্ষে পশ্চিমবঙ্গকে ৮০৯.৩৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। চিঠিতে একথাও জানানো হয়েছে, যে ইতিমধ্যে সেই বরাদ্দের ৪০৪.৬৮ কোটি টাকা অর্থাৎ প্রায় পঞ্চাশ শতাংশ রাজ্যকে দিয়েও দেওয়া হয়েছে।

জলশক্তি মন্ত্রালয়ের সেই চিঠি পাওয়ার পর গত ২৬ নভেম্বর সাংসদ ডঃ সুকান্ত মজুমদার দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলা শাসক নিখিল নির্মল ও রাজ্যের জল সম্পদ দফতরের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর কাছে মেইল পাঠান। মেইল মারফত পাঠানো সেই চিঠিতে তিনি জানতে চান যে দক্ষিণ দিনাজপুরের জন্য কোনও টাকা বরাদ্দ হয়েছে কিনা বা কোনও পরিকল্পনা রয়েছে কিনা।

সাংসদ ডঃ সুকান্ত মজুমদার বুধবার অভিযোগ করে বলেন, সাত দিন কেটে গেলেও মেইল মারফত পাঠানো সেই চিঠির কোন জবাব জেলা প্রশাসন বা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এদিন অবধি তাঁকে জানানো হয়নি। সেই সঙ্গে তিনি কথাও জানান, জবাব না পাওয়ার এই মনবৃত্তিতে প্রশ্ন উঠেছে খরাক্লীষ্ট এলাকা গুলির জলের সমস্যা চিরতরে সমাধানের লক্ষ্যে কেন্দ্রের দেওয়া অর্থাংশ রাজ্য সরকার আদতেও এই জেলার জন্য কাজে লাগাবে কি না।