কলকাতা: করোনাভাইরাস নিয়ে ভুয়ো খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে প্রশাসন কড়া ব্যবস্থা নেবে আবেই জানিয়ে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এবার সে পথেই হাঁটল রাজ্য সরকার৷ বেলেঘাটা আইডি-র চিকিৎসক যোগীরাজ করোনা আক্রান্ত শুক্রবার একটি পোস্ট ভাইরাস হয়৷ এরপরই নড়চড়ে বসে প্রসাশন৷

কিন্তু কিছুক্ষণ আগেই স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জানিয়ে এই খবর সম্পূর্ণ মিথ্যে৷ রাজ্যের কোনও চিকিৎসক বা কোনও স্বাস্থ্যকর্মীর করোনা আক্রান্ত হননি৷ সুতরাং স্বাস্থ্য দফতরের তরফে প্রশাসনকে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়৷ যার প্রোফাইল থেকে এই পোস্ট হয়েছে, তাকে খুঁজে বের করতে সাইবার ক্রাইমকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের চিকিৎসক যোগীরাজ৷ রোগীদের সেবা করতে করতে তিনিও নাকি করোনায় আক্রান্ত৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় এই পোস্ট ভাইরাল হয়৷ নেটদুনিয়ায় এভাবেই নানা ভুয়ো খবর ছড়িয়ে অকারণে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে৷ তাই তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর-এর পথে হাঁটল রাজ্য সরকার৷ স্বাস্থ্য দফতরের তরফে এদিন আরও জানানো হয়, এই ধরনের ভুয়ো খবরে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে মনোবল ভেঙে যাবে৷ তাই করোনা নিয়ে ভুয়ো তথ্য সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করলে কড়া ব্যবস্থা নেবে সরকার৷

ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ ও টুইটারের মতো সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মগুলিতেই বেশি ছড়াচ্ছে এধরনের গুজব৷ প্রধানমন্ত্রী ও প্রতি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা করোনা নিয়ে বিভ্রান্তিমুলক খবর বা গুজব না-ছড়ানোর জন্য দেশবাসীকে বারবার অনুরোধ করছেন৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও এই ভুয়ো ছড়াচ্ছে৷

এর আগও করোনা নিয়ে অনেক বুজরুকি খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গিয়েছে৷ অমুক উপায়ে করোনা থেকে মিলবে মুক্তি, তমুক ওষুধে সেরে উঠবে করোনা আক্রান্ত৷ ঘরবন্দি কিছু ব্যক্তি এর সত্যতা যাচাই না-করেই তা সোশ্যাাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দিচ্ছে৷ যা ভাইরাল হচ্ছে৷ তাতে ছড়িয়ে পড়ছে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে, বাড়ছে আতঙ্ক৷

বেলেঘাটা আইডির চিকিৎসকের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েন রাজ্যবাসী। বিশেষ করে কলকাতার বাসিন্দারা। কারণ এই হাসপাতালেই চিকিৎসা হচ্ছে করোনায় আক্রান্ত আটজনের৷ তাই অনেকেই খবরটি বিশ্বাস করেছিলেন৷ তবে স্বাস্থ্য দপ্তর খবরটি ভুয়ো বলে জানানোয় আপাতত স্বস্তিতে শহরবাসী।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প