স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষের উপর প্রাণঘাতী হামলা করতে পারে বিদেশি ‘সুপারি কিলার।’ সেই কারণেই বাড়ছে নিরাপত্তা। দিলীপ নিজেই সেকথা জানালেন বৃহস্পতিবার।

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ‘ওয়াই প্লাস কেটাগরির’ নিরাপত্তা পান। তবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে তাকে ইতিমধ্যেই অতর্কিত হানার ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে। নিরাপত্তাও ‘জেড কেটাগরির’ করে দেওয়া হয়েছে। এদিন দিলীপ নিজেই বলেছেন, “নিরাপত্তা বাড়েনি। তবে শুনছি বাড়বে।”

দিলীপ ও বলেছেন, “কেন্দ্রের কাছে খবর আছে। আমার কাছেও আছে। একটি সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আমার উপর প্রাণঘাতী হামলা করার চেষ্টা করছে।’

রাজ্য বিজেপি সূত্রে যা খবর, একটি সন্ত্রাসবাদী সংগঠন দিলীপ ঘোষের উপর হামলা করতে পারে। অন্য একটি সূত্রের খবর , প্রতিবেশী দেশের ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন দিলীপ ঘোষকে ‘টার্গেট’ বানিয়েছে। পার্টির তরফ থেকে তা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে জানানো হয়েছে। দিলীপ নিজেও বলেছেন, কেউ চিঠি দিয়ে হামলা করে না। সমাজের বিভিন্ন মাধ্যমে থেকে উনি খবর পেয়েছেন।

আরও পড়ুন : পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সদস্য সংখ্যা ৭৭ লাখ

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষের বাসস্থান পরিবর্তনও হয়েছে। রাজ্য বিজেপি নিরাপত্তার কারণেই বাড়ি বদলালেন দিলীপ। বৃহস্পতিবার নতুন বাসস্থানে উঠে পড়ে পড়েছেন তিনি।

মেদিনীপুরের সাংসদ এবং রাজ্য বিজেপির প্রধান মুখ দিলীপ সল্টলেকের এ এল ব্লকের একটি বাড়িতে থাকতেন। তাঁর নতুন বাসস্থান সেই জায়গা থেকে দূরে নয়। বরং খুব কাছে। সেটি সিএল ব্লকে।

রাজ্য বিজেপি সূত্রে খবর, দিলীপ ঘোষের এএল ব্লকের বাড়িটি প্রয়োজনের তুলনায় ছোট হয়ে গিয়েছিল। সাংসদের নিরাপত্তা রক্ষীরা সকলেই একসঙ্গে ওই বাড়িতে থাকতে পারছিলেন না। মূলত সেই কারণেই দিলীপকে বাড়ি বদল করতে হয়েছে।

জেড ক্যাটাগরির নিরাপত্তা বলয়ে ২২ জন নিরাপত্তারক্ষী থাকেন। সেই কারণে বড় বাড়ি দরকার। তার মধ্যে থাকে ৪-৫ জন এনএসজি কমান্ডো এবং পুলিশ থাকেন। এতজন রক্ষী একসঙ্গে একটি বাড়িতে থাকতে চান দিলীপ ঘোষের সঙ্গেই।