মুম্বই: ২০০৪ সালে জিনাৎ আমানকে শেষ দেখা গিয়েছিল মঞ্চে মিসেস রবিনসনের ভূমিকায়, যিনি এক বয়স্কা মহিলা বে়ঞ্জামিন ব্রাডোকের সঙ্গে শুয়ে ঘুমোন ‘দ্য গ্র্যাডুয়েট নাটকে ৷ এবার তিনি মঞ্চে ফিরছেন মোহনদাস গান্ধীর স্ত্রী কস্তুরবা গান্ধীর ভূমিকায়৷ সৈয়দ হায়দার হাসানের ‘দ্য ডিয়ারেস্ট বাপু লাভ কস্তুরবা’৷ আরিফ জাকারিয়ার সঙ্গে জিনাৎ আমানের এই নাটক মুম্বইতে ‘দ্য গ্রেট থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল’-এ অংশ হিসেবে প্রিমিয়ার হচ্ছে ২১ ফেব্রুয়ারি ৷ পরে ছয়টি শহরে এই নাটক ঘুরবে৷ যে জিনাৎ আমান বললে মনে হয়,ছোট স্কার্ট পরা সিগারেট হাতে যিনি কোনও যুবককে প্রলুব্ধ করছেন ৷ তারই প্রেক্ষিতে ৬৮ বছরের এই বলিউডি নায়িকা জানালেন , এটা একেবারে ভিন্ন চরিত্র৷

নাটককটা একেবারে কস্তুরাতে নামিয়ে আনার আগে, হাসান নাটকটিতে তিন স্ত্রীর কথা ভেবেছিলেন – কস্তুরবা, কমলা নেহেরু এবং মির্জার গালিবের স্ত্রী উমরাও বেগমের কথা ৷ তারপরে একক ভূমিকার কথা ভেবে জিনাৎ আমানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন৷ ওই মোটা চিত্রনাট্য প্রাথমিক ভাবে তিনি কিছুটা দমিয়ে দিয়ে জানিয়েছিলেন, এমন কাউকে যে দীর্ঘদিন থিয়েটার করেননি তার কাছে এসেছেন ৷ যদিও পাশাপাশি জানিয়েছিলেন এটা একটা বিরাট সুযোগ যেখানে সিনেমার সাপেক্ষে তাঁর একটা একেবারে আলাদা ইমেজ রয়েছে৷ তখন হাসান দুটি চরিত্রের কথা ভেবে কাজ করেন এবং জাকেরিয়াকেও নেন৷ এটি দম্পতির মধ্যে একটি সংলাপ হিসাবে উদ্ভাসিত হয়, যাতে উঠে আসে স্বামীকে লেখা চিঠিতে কস্তুরবার অন্তরের কথা।

প্রতি বছর ৩০জানুয়ারি গান্ধীজির মৃত্যুদিনে দেখা যায় দক্ষিণপন্থী গোষ্ঠীরা তাঁর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে মহিমান্বিত করছে ৷ একটি যুগপত প্রবণতা হল আরএসএস এবং তার সহযোগী সংগঠনের গডসে মূলধারার চেষ্টা করা৷ সন্ত্রাশবাদী কার্যকলাপে অভিযুক্ত বিজেপি নেত্রী প্রজ্ঞা ঠাকুর সংসদে গড়সেকে দেশপ্রেমী বলে সম্বোধন করেছেন৷ আর এক বিজেপি সাংসদ অনন্তকুমার হেগড়ে গান্ধীর স্বাধীনতার আন্দোলনকে ‘নাটক’ বলে কাটাক্ষ করেছেন৷ সেই পরিস্থিতিতে নাট্যকার এক বার্তা দিতে চেয়েছেন৷ তবে তিনি বিতর্কে আবদ্ধ হওয়ার বিষয়ে সতর্ক থাকতে চান৷ এই নাটকে গান্ধীর কথা বলা হয়েছে একেবারে অরাজনৈতিক ভাবে ৷ এখানে রাজনীতিটা পিছনে চলে গিয়েছে বলেই দাবি করেছেন হাসান৷

জিনাৎ আমানের সত্তরের দশকের যে গ্ল্যামার ইয়াঁদো কি বারাত , ডন প্রভৃতি ছবিতে ছিল এবং যাকে সম্প্রতি পানিপথ ছবিতে সাকিনা বেগম হয়েছেন সেখানে এই নাটক তাঁকে কতটা সিনেমার মতো তৃপ্তি দেবে সে প্রশ্নও উঠছে ৷ সিনেমায় রিটেক করার সুযোগ থাকে যাতে সবচেয়ে ভাল পার্ফরম্যান্সটা কাজে লাগানো যায়৷ কিন্তু সে সুযোগ নাটকে থাকে না কিন্তু চলজলটি সামনে বলা দর্শকের প্রতিক্রিয়া দেখতে পাওয়া যায়৷ সত্যম শিবম সুন্দরের নায়িকা অবশ্য জানিয়েছেন,প্রথম কয়েকটা শো করার পরেই এই বিষয়ে মতামত দেওয়া যাবে ৷