মুম্বই: মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা পড়তে বাকি মাত্র ৪৮ ঘণ্টা৷ কিন্তু বিজেপি-শিবসেনার ঘরে অশান্তি লেগেই রয়েছে৷ সেই অশান্তির আঁচ পাচ্ছেন শীর্ষ নেতৃত্বের একাংশ৷ রাজ্যের বিভিন্ন অংশ থেকেই বিদ্রোহী নেতারা বিজেপি-সেনা নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন৷ লাতুর এবং মুম্বইতে বিদ্রোহী নেতারা পথেও নেমেছেন৷ মূল বিষয়, বিধানসভা নির্বাচনের টিকিট বণ্টন৷

কে টিকিট পেয়েছেন বা কে পাননি, তার থেকেও বড় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে যে পদ্ধতিতে টিকিট বণ্টন হয়েছে, তাকে বিতর্কিত আখ্যা দিয়েছেন অনেকেই৷ মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফরণবিশের পিএ অভিমন্যু পাওয়ার টিকিট পেয়েছেন৷ তিনি কেন টিকিট পেলেন তার জবাব চেয়ে রাস্তা অবরোধ করেন বিজেপি কর্মীরা৷ এই রকম ঘটনা রাজ্যের দিকে দিকেই ঘটেছে৷ মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং শিবসেনার জোট হচ্ছেই তা অনেক আগেই ঠিক হয়ে গিয়েছিল৷ ২২ সেপ্টেম্বরের আগেই ওই জোট ঘোষণা হবে বলেও জানিয়েছিল সেনা৷ ওই দিনই রাজ্যে জনসভা করতে এসেছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ৷ অমিতের উপস্থিতিতেই ওই জোট ঘোষণা হয়৷

শিবসেনার ভিতরে মারাত্মক অসন্তোষের আগুন জ্বলছে৷ নভি মুম্বই আসনে শিবসেনা নেতা বিজয় নাহাটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চাইছিলেন৷ কিন্তু এই আসন বিজেপিকে দেওয়া হয়েছে৷ সেনার নেতারা আইরোলি আসনটিও দাবি করেছে৷ আপাতত যা ঠিক, ওই আসনটি বিজেপি দখলে রেখেছে৷ নাসিকে অসন্তোষ চরমে৷ এই শহরের তিনটি আসনই বিজেপিকে দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু সেনা দাবি করেছে, আসনগুলি তাদের চাই৷

সেনা নেতা বিলাস শিন্ডে নাসিক পূর্ব থেকে বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানিয়েছেন৷ এই ঘটনা যদি ঘটে তা জোট রসায়নের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর হবে না৷ মহারাষ্ট্র নবনির্মান সেনা থেকে বিজেপি-তে আসা বসন্ত গীতে নাসিক মধ্য সিট থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চাইছেন৷ কিন্তু তিনি এখনও দলের তরফ থেকে কেনও ইঙ্গিত পাননি৷ তবে সূত্রের খবর, বিধানসভার টিকিট না পেলে তিনি অনুরাগীদের নিয়ে ভোটের আগেই দল পরিবর্তন করতে পারেন৷ নাসিক পশ্চিমের বর্তমান বিধায়ক বালাসাহেব সনপ পার্টির প্রতি ক্ষুদ্ধ৷ কারণ তার টিকিট পেতে পারেন নতুন প্রার্থী রাহুল ধিকালে৷ কংগ্রেস-এনসিপি পুর বিষয়টির উপর নজর রাখছে৷

শিবসেনা এবং বিজেপির জোট নিয়ে মহারাষ্ট্রে আলোচনা তুঙ্গে। মহারাষ্ট্র বিধানসভায় সেনা-বিজেপির আসন সমঝোতা ঠিক কোন পর্যায়ে শেষ হবে তা-ই এখন রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের আলোচনার বিষয়৷ যা খবর পাওয়া যাচ্ছে, বিজেপি ১২৫ টি আসনে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে। শিবসেনাকে তারা ৬৮টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে এখনও পর্যন্ত। অনেকেই বলছেন শিবসেনা নিজেদের ‘জুনিয়ার পার্টনার’ নিসাবে স্বীকার করে নিয়েছে৷ কারণ ধারে ভারে গত পাঁচ বছর মহারাষ্ট্রে বিজেপি শিবসেনাকেও ছাড়িয়ে গিয়েছে৷