তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: ২০১৪ সালের পর থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কেউ কোনও দিন একই পোশাক পড়তে দেখেছে? প্রতিদিন নতুন নতুন পোশাক পরেন অথচ দেশের গরীব মানুষের কথা তিনি ভাবেন না।” ঠিক এই ভাষাতেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বিঁধলেন রাজ্যের শ্রম,আইন ও বিচার বিভাগীয় মন্ত্রী মলয় ঘটক।

রবিবার বাঁকুড়া শহরের নতুনচটি, খ্রিস্টান ডাঙা চার্চ ময়দানে শ্রমিক মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসে তিনি আরও বলেন, ”উনি দেশের গরীব মানুষের কথা না ভেবে, ১০ লক্ষ টাকার জ্যাকেট পড়েন। হাত ঘড়ির দাম ২৫ লক্ষ টাকা। তেমনি, সম্প্রতি যে চশমা পরে সূর্যগ্রহণ দেখেছিলেন তার দাম ছিল দেড়লক্ষ টাকা। এই অবস্থায় বুঝতে হবে, কোন দল বা কোন মানুষটি সাধারণ গরীব মানুষের কথা ভাবে।”

রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেশ কিছু ইতিবাচক প্রকল্প তৈরি করেছেন বলেও তিনি দাবি করেন। পরে মন্ত্রী মলয় ঘটক সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ”বাম আমল ২০০০ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত শ্রম দফতরের অনুদান ছিল মাত্র ৯ কোটি। এখন সেখানে ১৬৮০ টাকা। এদিন বাঁকুড়া শ্রমিক মেলা থেকেই ৪ কোটি টাকার অনুদান তুলে দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত সারা রাজ্যে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা প্রকল্পে ২০ লক্ষ মানুষ নাম নথিভূক্ত করেছেন। জেলায় জেলায় শ্রমিক মেলা গুলিতেও নাম নথিভূক্তকরণের কাজ চলছে।”

সব মিলিয়ে, আরও ১৫ লক্ষ মানুষ এই প্রকল্পের আওতায় আসবেন বলেও তিনি আশাপ্রকাশ করেন। সম্প্রতি সারেঙ্গার ফতেডাঙা গ্রামে জনস্বাস্থ্য কারিগরী দফতরের ওভারহেড জলের ট্যাঙ্ক ভেঙে পড়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান। এইবিষয়ে না জেনে কিছু মন্তব্য করা উচিত নয় বলেই তিনি জানান।

এদিন বাঁকুড়া শ্রমিক মেলার মঞ্চ থেকে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা প্রকল্পে বেশ কিছু উপভোক্তার হাতে চেক তুলে দেওয়া হয়। মেলা চলবে আগামী ২৮ জানুয়ারি অর্থাৎ মঙ্গলবার পর্যন্ত। এদিনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট দফতরের মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, জেলা পরিষদের সভাধিপতি মৃত্যুঞ্জয় মুর্ম্মু, পৌরপ্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত এবং বিধায়ক শম্পা দরিপা, অরূপ চক্রবর্তী প্রমুখ।