কলকাতা: করোনা আবহে এবার বাজি বিক্রি ও বাজি ফাটানো বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷ কিন্তু তাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চলছিল বাজি ফাটানো৷

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ৷ বাজি ফাটানোতে বাধা দিলে,পুলিশ কে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ৷ আহত পুলিশ কর্মীদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ ঘটনাটি ঘটেছে বালি থানা এলাকার একটি আবাসনে৷

ইতিমধ্যেই সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে অভিযুক্তদের চিহ্নিত করছে পুলিশ৷ তারপর ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে বালি থানা পুলিশ৷ ধৃতদের জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা শুরু করেছে পুলিশ৷ তবে এই ঘটনায় আবাসনের বাসিন্দারা মুখে কুলুপ এঁটেছে৷

অন্যদিকে বাজারে বাজারে ঘুরে বাজি বিক্রির বিরুদ্ধে মাইকে প্রচার করছে কলকাতা পুলিশ৷ কোর্টের রায়কে অমান্য করে বাজি বিক্রি করায় বিধাননগর পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করেছে৷

কালীপুজোর আগে বৃহস্পতিবার বিভিন্ন বাজারে ঘুরে বাজি বিক্রির বিরুদ্ধে মাইকে প্রচার চালায় পুলিশ৷ বিক্রেতারা কোনও ধরনের বাজিই এবার বিক্রি করতে পারবেন না৷ শুধু তাই নয়, কোনও ক্রেতা বাজি ক্রয় করলে,তার বিরুদ্ধেও আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে প্রচার করছে পুলিশ৷

অন্যদিকে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে বাজি বিক্রি করার অভিযোগে সল্টলেকের দত্তাবাদ থেকে এক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷

বৃহত্তর মানুষে জীবনের কথা ভেবে এ বছর ছট, কালীপুজো, দীপাবলিতে কোন বাজি পোড়ানো যাবে না, শুধু তাই নয় এ বছর প্রকাশ্যে কোন বাজি বিক্রি করাও যাবে না বলে নির্দেশিকাতে জানিয়েছে আদালত। এই প্রসঙ্গে পুলিশকে এই বিষয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় থানার পুলিশকে কড়া নজরদারি চালাতে বলা হয়েছে৷

অবশ্য কোর্টের নির্দেশের আগেই নবান্নে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেন,‘কোভিড রোগীর পক্ষে বায়ুদূষণ মারাত্মক। তাই কালীপুজোয় বাজি ফাটাবেন না।

এছাড়া বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দুর্গাপুজোর মতোই বিধিনিষেধ মেনে হোক কালীপুজো। পুজো নিয়ে জনস্বার্থ মামনার শুনানিতে কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে, এ বছর কালীপুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো এবং কার্তিক পুজো দুর্গাপুজোর মতোই বিধিনিষেধ মেনে করতে হবে৷ প্যান্ডেলের বাইরে ৫ মিটার নো এন্ট্রি জোন থাকবে৷

ঢাকি প্যান্ডেলের নো এন্ট্রি জোনের বাইরে ৫ মিটারের মধ্যে থাকবে৷ ১৫০ মিটারের মধ্যে ১০ জন এবং ৩০০ মিটারের মধ্যে ১৫ জন ৩০০ বেশি মণ্ডপে ৪৫ জন এক সাথে প্রবেশ করতে পারবে৷ পুজো মণ্ডপের ভেতরে ও বাইরে স্যানিটাইজার, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক৷ এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে বলে নির্দেশিকাতে জানিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷

একই সঙ্গে আদালতে আরও জানিয়েছে যে, কালীপুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো এবং কার্তিক পুজোয় কোনও শুভযাত্রা করা যাবে না৷ কোনও লাইটিং, ব্যান্ড ব্যবহার করা যাবে না৷ স্থানীয় থানাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, কোনও কোথাও যেন বেশি মানুষ ভিড় না করে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I