নিবেদিতা দে, কলকাতা: বাগরি বাজারের ওই বিশাল জায়গায় বহুতল বানাতে চেয়েছিল মালিকপক্ষ? পুরো জমিটাই কি প্রমোটিংয়ে দিয়ে দিতে চেয়েছিল বাগরিরা ? বাগরি বাজারের অগ্নিকাণ্ডের পর এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ ওঠে এসেছে।

বাগরি বাজারের ব্যবসায়ীরা পরিষ্কার জানাচ্ছেন, মালিকপক্ষের ঝোঁক ছিল প্রমোটিংয়ে। ভাড়াটেদের সঙ্গে সদ্ভাব ছিল না।

ভাড়া দিতে একদিন বেশি সময় লাগলে মালিক ২৫ টাকা বেশি চাইতো। আর সিইএসই – এর ইউনিট প্রতি মূল্য ১১টাকা৬০ পয়সা হলেও মালিক পক্ষের কর্ণ কোঠারি তাদের থেকে নাকি 13টাকা60 পয়সা মূল্য ধরে বিদ্যুৎ খরচ হিসেব করতো।

কিন্তু কোথায় গেলেন মালিক পক্ষের রাধা বাগরি, লক্ষী বাগরি কিংবা কর্ণ কোঠারি? কলকাতা পুলিশ সূত্র বলছে, লন্ডন পালিয়েছেন তারা।

বাগরি বাজারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর মালিকপক্ষের কাউকেই দেখা যাবেনা, তা একপ্রকার জানতো ভাড়াটিয়ারা। যে মালিকরা বাড়ি প্রমোটিংয়ে দেওয়ার চেষ্টায় রয়েছেন, সম্পূর্ণ অগ্নিকান্ডের ঘটনা যে তাদের ষড়যন্ত্র, একপ্রকার তাই মনে করছে ভাড়াটে দোকানদাররা।

সোমবার দুপুরে পুর এবং নগরোন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ঘটনাস্থলে এসে জানিয়ে যান মালিকপক্ষ পালাতে পারবে না। পুলিশ তদন্ত করছে।