শিকাগো: ২০১০ সালে ফুটবল বিশ্বকাপে প্রতিটি ম্যাচের আগে ভবিষ্যৎবাণী করতে দেখা গিয়েছিল পলকে৷ ভবিষ্যৎবাণী করে ফুটবলপ্রেমীদের প্রিয় পাত্র হয়ে উঠেছিল এই অক্টোপাসটি৷কিন্তু, অক্টোপাসরা না কী এই গ্রহের প্রাণীই নয়৷এমনটাই দাবি কয়েকজন গবেষকের৷তাদের সঙ্গে ভিনগ্রহের প্রাণী বা এলিয়েনের মিল পেয়েছেন তাঁরা৷

 

সম্প্রতি শিকাগো ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা গবেষণার পর জানিয়েছেন, ‘মানুষের থেকেও ছোট অক্টোপাসের জিন৷ কিন্তু, এর মধ্যে থাকা প্রায় দশ হাজারেরও বেশি জিন অক্টোপাসের চরিত্রকে অন্য প্রাণীদের থেকে আলাদা করেছে৷ তাদের শরীরে বিশেষ জিনের সংখ্যাও বেশি৷তাদের দেহে এমন কয়েকটি জিনের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছে, যা অন্য কোনও প্রাণীর দেহে লক্ষ্য করা যায় না৷পাশাপাশি , আকার এবং কয়েকটি চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের দিক দিয়েও শম্বুকগোত্রীয় প্রাণীদের থেকে আলাদা অক্টোপাস৷ ফলে, তারা অক্টোপাস ভিনগ্রহের হলেও হতে পারে বলে দাবি গবেষকদের৷       

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.