স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পরিকল্পিত খুন নাকি আত্মহত্যা নাকি নিছকই মৃত্যু? এই ধরনের বহু প্রশ্নই এখন মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে কলকাতা পুলিশের৷ তবে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান খুনই হয়েছেন সীমাদেবী৷

নিজের পাঁচতলা বাড়ির মধ্যে ওপরের তলায় থাকতেন তিনি৷ সেখানেই মৃত্যু হয় সীমা চৌধুরি নামে বছর ৫২-র ওই মহিলার৷ ঘটনাটি ঘটেছে কসবা থানার অন্তর্গত ট্যাগোর পার্কের লস্কর হাটে এলাকায়৷ শনিবার বিকেল সাড়ে ৪ টে থেকে ৫ টার মধ্যেই ঘটনাটি ঘটেছে বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান৷

সূত্রের খবর, বাড়ির পরিচারক বিকেলে কাজ করতে এসে দেখেন বাড়ির দরজা খুলছে না৷ বহু চেষ্টার পরও যখন দরজা খোলে না তখন ওই পরিচারক প্রতিবেশীদের ডাকে৷ বাড়িতে কোনও রকমে প্রতিবেশীরা ঢুকতে পেরে দেখেন ওই মহিলা অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন৷

তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করলে ওই মহিলার মাথার পিছনে চাপ চাপ রক্তের দাগ দেখে বাসিন্দারা৷ এমনকি পড়নের শাড়ির একটি অংশও পোড়া অবস্থায় দেখেন প্রতিবেশীরা৷ এই ঘটনার পর তড়িঘড়ি এলাকাবাসীরা স্থানীয় থানায় খবর দিলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে আসেন কসবা থানার পুলিশ৷ পরে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ৷

বর্তমানে ওই মহিলার মৃতদেহটি পুলিশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়৷ ময়নাতদন্তের পরই জানা যাবে এই মৃত্যুর রহস্য৷ ঘটনার নেপথ্যে কে বা কারা সেই দিকটিও তদন্ত করা হচ্ছে বলে পুলিশ সূত্রে খবর৷