আর্কাইভ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সল্টলেকের ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদ কে কেন্দ্র করে ফের উত্তেজনা৷ বৃহস্পতিবার শতাধিক হকার বিধাননগর পুরসভার সামনে বিক্ষোভ দেখায়৷ বিক্ষোভকারীদের উদ্দ্যেশ্য পুরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্ত জানান,ফুটপাত থেকে যদি তারা না উঠে তাহলে আইন আইনের পথে চলবে৷

হকারদের অভিযোগ, দু’দিন আগে বিধাননগর পুরসভার গাড়িতে মাইকিং করে বলা হয়েছে ফুটপাত থেকে হকারদের উঠে যেতে৷ তাদেরকে ৪৮ ঘন্টা সময়সীমা বেধে দেওয়া হয়েছে৷ তার মধ্যে সল্টলেকের ফুটপাত দখল করে যে সমস্থ হকাররা বসে আছে তাদেরকে সে জায়গা ছেড়ে দিতে হবে৷ এরপর তার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকালে হকাররা সল্টলেকের ৯ নম্বর ট্যাংক থেকে মিছিল করে বিধাননগর পুরসভার সামনে পৌঁছায়৷ এবং সেখানে শতাধিক হকার বিক্ষোভ দেখায়৷

পুরসভার সামনে বিক্ষোভ চলাকালীন সেখানে হাজির হন মেয়র সব্যসাচী দত্ত। বিক্ষোভকারী হকারদের মাঝে দাঁড়িয়ে তাদের বক্তব্য শোনেন। এরপর তাদের উদ্দ্যেশ্য মেয়র জানান, বিধাননগরের সাধারণ মানুষের দাবি, ফুটপাত পথ চলতি মানুষদের জন্য ফিরিয়ে দিতে হবে। বিধাননগরের ফুটপাত পথচলতি মানুষদের ফিরিয়ে দিতে পুরসভা বদ্ধপরিকর৷

আর পুরসভার মেয়রের চেয়ারে বসে থেকে আমি বিধাননগরবাসী হিসাবে এটা আমার কর্তব্য ও দায়িত্ব৷ এতে যদি অবাঞ্চিত ভাবে কেউ ফুটপাত দখল করে থাকে তাকে সরানো আমার কর্তব্য৷ এই চেয়ারে যতক্ষন আছি আমি তা চেষ্টা করবো। তিনি আরও জানান, তাদের অনুরোধ করা হয়েছে নিশ্চই শুনবেন, এছাড়া এখানে যারা এসেছেন তারা কেউ বিধাননগর এর বাসিন্দা নন। যদি তারা না উঠে তাহলে আইন আইনের পথে চলবে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I