সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : তিনি বিদেশীদের ‘নাইট’ আবার দেশের জন্য তিনি ‘পদ্মভূষণ’। তিনি ডঃ জ্ঞানচন্দ্র ঘোষ। দেশ বিদেশে বহু সম্মান লাভ করেন। ১৯৪৩ সালে তিনি “নাইট” উপাধিতে ভূষিত হন। ভারত সরকার তাঁকে ১৯৫৪ সালে ‘পদ্মভূষণ’ সম্মানে সম্মানিত করে।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য আশুতোষ মুখোপাধ্যায় তাঁকে অধ্যাপকের পদ গ্রহণে আমন্ত্রণ জানান। এরপর নবনির্মিত রাজাবাজার বিজ্ঞান কলেজে রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক নিযুক্ত হন। ১৯২১ সালে নবগঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন এবং দীর্ঘ কুড়ি বৎসর অধ্যাপনার সঙ্গে নানা ধরনের গবেষণায় নিযুক্ত ছিলেন। তার মধ্যে আলোক রসায়ন বা ফটো কেমিস্ট্রি উল্লেখযোগ্য। সাধারণ গ্যাস হতে ফিসার-ট্রপস পদ্ধতিতে অনুঘটকের উপস্থিতিতে তরল জ্বালানির উৎপাদন-বিষয়ে তাঁর গবেষণা দেশেবিদেশে সমাদৃত হয়েছিল।

এই গবেষণা বিষয়ে তাঁর রচিত গ্রন্থ হল – ‘সাম ক্যাটালাইটিক রিয়্যাকশন অফ ইন্ডাস্ট্রিয়ার ইমপরট্যান্স’। ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দে নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামনের পর বাঙ্গালোরেস্থিত তথা ইণ্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্সের অধিকর্তাসহ ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেসের সভাপতি হন। ইণ্ডিয়ান কেমিক্যাল সোসাইটির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি। ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দে থেকে দেশে নানা প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বভার বহন করেছেন। ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দে ভারতের প্রথম আই.আই.টি. খড়্গপুরের (ইণ্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি, খড়্গপুর) প্রথম ডিরেক্টর হন। ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হন । ভারতের পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য হিসাবে শিক্ষা, বিজ্ঞান গবেষণা ও স্বাস্থ্য বিষয়ে পরামর্শক ছিলেন তিনি।

জ্ঞানচন্দ্র ঘোষের জন্ম বৃটিশ ভারতের বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়ায় ১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দের ৪ঠা সেপ্টেম্বর। পিতার নাম রামচন্দ্র ঘোষ। ১৯০৯ খ্রিস্টাব্দে গিরিডি থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯১১ খ্রিস্টাব্দে চতুর্থ স্থান অধিকার করে আই.এসসি ও কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে রসায়ন শাস্ত্রে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে বি.এসসি এবং ১৯১৫ খ্রিস্টাব্দে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়হতে এম.এসসি.পাশ করেন । তিনি আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের ছাত্র ও সত্যেন্দ্রনাথ বসু ও মেঘনাদ সাহার সতীর্থ ছিলেন। তিনি গাঢ় দ্রবণের মধ্যে লবণের অণুগুলি কীভাবে আয়নিত হয়ে বিদ্যুৎ পরিবহন করে, এই বিষয়ে মৌলিক গবেষণা করে ১৯১৮ খ্রিস্টাব্দে ডি.এসসি উপাধি লাভ করেন ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেমচাঁদ রায়চাঁদ বৃত্তি ও স্যার তারকনাথ পালিত স্কলারশিপ পান।

তাঁর এই গবেষণালব্ধ তত্ত্ব “ঘোষের আয়নবাদ” নামে বিখ্যাত। বৃত্তি পেয়ে লণ্ডনে যান এবং সেখান থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর গবেষণা স্বনামধন্য বিজ্ঞানী ম্যাক্স প্লাংক, উইলিয়াম হেনরি ব্র্যাগ, ভালগার নের্নষ্ট প্রমুখ দ্বারা উচ্চ প্রসংশিত হয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।