দুর্গাপুর: প্রতিবাদে ইতিমধ্যেই পথে নেমেছেন বহু মানুষ। সামিল বিদ্বজ্জনেরাও। ইতিমধ্যেই এনআরসি ও সিএএ-র বয়কট ডাক দিয়েছেন বাংলার শিল্পীরা। সেখানে রয়েছেন সংবেদনশীল মানুষ থেকে শুরু করে পড়ুয়ারাও। আন্দোলনে সামিল হয়ে প্রত্যেকের মুখে এক কথা– ‘কাগজ আমরা দেখাব না’। অনেকে আবার সমর্থনও করছে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত।

ইতিমধ্যেই ভিডিওর মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছেন সব্যসাচী চক্রবর্তী, রূপম ইসলাম, স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়, মনোরঞ্জন ব্যাপারী, ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়, কঙ্কণা সেন শর্মা, নন্দনা দেবসেন প্রমুখ। এবার এনআরসি ও সিএএ নিয়ে মুখ খুললেন সাহিত্যিক বাণী বসু। কেন্দ্রীয় সরকারের মেনে নিতে পারছেন না তিনি।

রবিবার দুর্গাপুর বইমেলায় গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকে নিশানা করলেন সাহিত্যিক বাণী বসু। তিনি বলেন, “গুজরাতের দু’জন মানুষের কাছে প্রমাণ দিতে হবে নাগরিকত্বের? আমাদের ভোটেই তো জিতেছেন। তাহলে আগে গদি ছাড়ুন। তারপর এসব বলুন।”

আরও অনেকের মতোই বাণী বসুও এনআরসি এবং সিএএ নিয়ে চিন্তিত। তাঁর মতে, ভয় এটাই যে বুদ্ধিজীবীরা শাসক দলের কাছে বিক্রি হয়ে গেছেন। গুজরাত থেকে আসা দু’জন মানুষ ঠিক করবেন আমরা নাগরিক কিনা? কী ভেবেছেন কী? আমরা তো নাগরিক। তা না হলে আমাদের ভোটেই তাঁরা জয় লাভ করলেন কীভাবে? তাহলে আগে গদি ছাড়ুন।”

এভাবেই দুর্গাপুর বইমেলায় গিয়ে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকে কটাক্ষ করলেন সাহিত্যিক বাণী বসু। এর আগে হলদিয়া সাহিত্য উৎসবে যোগ দিয়ে এনআরসি ও সিএএ-র বিরোধিতা করেছেন সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ও। এবার এনআরসি ও সিএএ-র বিরোধিতায় সরব হলেন বাণী বসু।