কলকাতা- বিল বিতর্কের জেরে দুইদিন বন্ধ রয়েছে বিধানসভা। এর মাঝেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে ঘিরে মাথাচাড়া দিল নতুন বিতর্ক। গতকাল বিকেলেই রাজ্যপাল জানিয়েছিলেন তিনি বৃহস্পতিবার বিধানসভায় যাবেন। ঐতিহাসিক স্থাপত্য,লাইব্রেরি-সহ বিধানসভার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখবার জন্য তিনি বিধানসভায় যাবেন বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু এ দিন বেলা সাড়ে দশটা নাগাদ রাজ্যপালের নির্দিষ্ট বিধানসভার তিন নম্বর প্রবেশপথ দিয়ে ঢুকতে যান। কিন্তু সেই গেটে তখন তালা ঝুলছে। এই দেখে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন রাজ্যপাল। তিনি সাংবাদিকদের জানান, ‘এমন নয় যে আজকে বিধানসভা বন্ধ। কিন্তু, আমার ঢোকার গেটটাই আটকে রাখা হয়েছে। এই ঘটনা সত্যি অনভিপ্রেত। রাজ্যপাল হয়ে আমি ভীষণ অপমানিত হয়েছি।’ এরপরেই তিনি হেঁটে যান বিধানসভার দুই নম্বর গেটের দিকে।

বিধানসভা সূত্রে খবর, রাজ্যপাল বিল সই না করায় দুই দিন বিধানসভা বন্ধ রাখা হয়েছে। রাজ্যপাল আসছেন জেনে বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় যে কাজের সূত্রে এ দিন বাইরে থাকবেন তা অনেক আগেই রাজ্যপালের সেক্রেটারিকে জানানো হয়েছিল। রাজ্যপাল অবশ্য সে দাবি খারিজ করে দেন। ফলে, বিধানসভায় এসে গেট বন্ধ দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েন রাজ্যপাল।

উল্লেখ্য, বিধানসভার নিয়ম অনুযায়ী শুধুমাত্র রাজ্যপালের জন্য বরাদ্দ রাখা হয় তিন নম্বর গেট। অন্য দিকে দুই নম্বর গেট সাধারণত ব্যবহার করেন বিধায়ক, সাংবাদিক এবং সাধারণ দর্শনার্থীরা। কিন্তু, এ দিন সেই তিন নম্বর গেটেই ঝুলছিল তালা।

গতকাল, বুধবার শতাব্দীপ্রাচীন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে যান রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। কিন্তু, সেখানে গিয়ে তিনি দেখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং সহ-উপাচার্য দফতরে নেই। রাজ্যপাল এসেছেন শুনেও তাঁরা না আশায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন রাজ্যপাল। ওই দিনই তিনি জানিয়েছিলেন বৃহস্পতিবার বিধানসভা ভবনে যাবেন তিনি।

এ দিন বিধানসভার বন্ধ গেটের সামনেই সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আজ এমন নয় যে বিধানসভা বন্ধ। বিধানসভার অধিবেশন না হলেও অন্যান্য কাজকর্ম চলছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও আমাকে এইভাবে অপমানিত করা হল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি আসছি শুনে গতকাল খুশি হয়েছিলেন স্পিকার। কিন্তু, কী এমন হল যে তড়িঘড়ি আমার সেক্রেটারিকে ডেকে বলা হল তিনি আজকে থাকবেন না।’

এর আগেও একাধিকবার রাজ্যপালের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। রাজ্যপাল বিলে সই না করায় নজিরবিহীন ভাবে দুই দিন বন্ধ রাখা হয়েছে বিধানসভার অধিবেশন। আর এর মাঝে বিধানসভার গেট খোলা নিয়ে এই বিতর্ক নতুন করে মাথাচাড়া দিল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। তবে, রাজ্যপালের এই ধরনের ঘটনাকে বেশি গুরুত্ব দিতে নারাজ শাসক দল।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও