লন্ডন: বিখ্যাত এমএনসি৷ বহুজাতিক এই সংস্থার নাম Automattic, এতে প্রায় ৯৩০ জন কর্মী কাজ করেন৷ কিন্তু কাউকে অফিস যেতে হয় না৷ ওরকম কোনও কিছু নেই তো ! তা বলে এত বড় ব্যাপার স্যাপার সেটা কেমন করে সামাল দেওয়া হয় ? বিবিসি জানাচ্ছে, এই সংস্থার কর্মীদের অফিসে যেতেই হয় না ৷ তাঁরা যে যেখান থেকে পারেন কাজ করে দেন৷ ওয়ার্ক ফ্রম হোম নিয়মে৷

ব্রিটেনের ন্যাশনাল স্ট্যাটিসটিক্স লেবার ফোর্স সার্ভে জানাচ্ছে, বর্তমানে সাড়ে ১০ লক্ষের বেশি মানুষ ঘরে বসেই চাকরি করছেন। বিবিসি প্রতিবেদনের শিরোনাম- The firm with 900 staff and no office ! বুঝুন কাণ্ড !! প্রতিবেদনে স্পষ্ট ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে এটাই ভবিষ্যত৷ এভাবেই কাজের প্রক্রিয়া আরও দ্রুত বাড়বে৷

অটোম্যাট্টিক সংস্থায় কম করে ৭০টি দেশের ৯০০ জনের বেশি কর্মী কাজ করেন। কোনো হেডঅফিস নেই৷ কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করার জন্য বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয়৷ কেউ যদি কফিশপে বসে কাজ করেন, তাহলে তাঁর কফির দাম দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

সংস্থার প্রধান কেট হাসটনের বলেছেন, এখন আর কেউ অফিসের কথা মনেও করে না। আমি ও আমার কর্মীরা অফিস-ফ্রি। আমরা সবাই স্বাধীনতা ভালোবাসি, আর একে অপরের সঙ্গে দেখা করতে নিয়মিত ভ্রমণ করি৷ এতে কাজের গতি আরও বাড়ে৷ তবে এই ধরণের প্রক্রিয়ায় অফিস বাড়ি ছাড়া অফিস চালাতে গেলে দরকার দ্রুত গতির ইন্টারনেট কানেকশন ও বিশেষ সফটওয়্যার৷ এর সাহায্যে প্রত্যেক কর্মী একে অপরের সঙ্গে স্বচ্ছন্দে কাজ করতে পারবেন৷

সৌ: BBC

সংস্থার কর্মীদের সঙ্গে বিবিসি কথা বলেছে৷ তারা জানিয়েছেন-আধুনিক অফিস থাকলে কাজ করতে বেশ সুবিধা হয়। কিন্তু এই ধরণের অফিস তৈরিতে অনেক খরচ৷ যেমন অফিস ভাড়া, কর্মীদের আসা যাওয়ার খরচ দেওয়া৷ দরকার পড়লে খাওয়ার ব্যবস্থা করা৷

আবার অনেকে জানাচ্ছেন, এর পাশাপাশি একটা বড় ব্যাপার হল অফিসের ভিতর মহিলা কর্মীদের বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হয়৷ সেসব এড়াতে অফিসটাই যদি ঘর থেকে করা যায় তা হলে তো সবদিক নিশ্চিত৷ এতে ঘরে থাকাও হল৷ আবার চাকরিও করা হল৷ মাস গেলে মাইনে পকেটে চলে এল৷ উপরন্তু আসা যাওয়ার খরচ বাঁচল৷ নিজের ইচ্ছে মতো কাজটা হাত পা ছড়িয়ে করা গেল৷

মনোবিদরা জানাচ্ছেন, এই ধরণের কাজ করতে পছন্দ করেন স্বাধীনচেতা ব্যক্তিত্বরা৷ তাঁরা অফিসের বস বা উপরওয়ালাকে তোল্লাই দেওয়া পছন্দ করেন না৷ ফলে অহেতুক জটিলতা তৈরি হয়না৷

অন্যদিকে প্রতিষ্ঠান চালানোর খরচের নিরিখে অফিস ছাড়া কাজ বা ওয়ার্ক ফ্রম হোম করা অনেক খরচ বাঁচিয়ে দেয়৷ এই খরচ কার হয়না বলে সংস্থার আর্থিক বুনিয়াদ শক্ত থাকে৷ তার থেকেও বেশি হল কর্মীদের নিয়ে অহেতুক ঝামেলা থেকে মুক্তি৷

বিবিসি রিপোর্টে বলা হয়েছে, বেশ কয়েক বছর ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই অফিস বিহীন কোম্পানি নতুন ট্রেন্ড৷ দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এই পদ্ধতি।