কলকাতা: বিধাননগরে বুধবার আড়ম্বরেই শেষ হল পাঁচ দিনের লিটল ম্যাগাজিন মেলা। ১৫ তারিখ শুরু হয় সাহিত্য উৎসব ও লিটল ম্যাগাজিন মেলা। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগের অন্তর্গত পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমির উদ্যোগে এই মেলা প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হয়। আগে এই মেলা নন্দন চত্বরে অনুষ্ঠিত হত। তবে ২০১৭ সালে রবীন্দ্র ওকাকুরা ভবনে স্থানান্তরিত হয়।

মেলা স্থানান্তরের সময় অনেকে আপত্তি করলেও দু’বছর ঘুরতেই বিধাননগরে জমে উঠেছে লিটল ম্যাগাজিন মেলা। এবার তাই অনেকেই খুশি। প্রতি বছরই এই সাহিত্য উৎসব উপলক্ষে কবি, লেখক ও লিটল ম্যাগাজিনকে পুরস্কৃত করা হয়। প্রবীন লেখক ও সাহিত্যিকদের সন্মান জানাতে এবং নতুন প্রজন্মের প্রতিভাবান লেখক ও লিটল ম্যাগাজিনের সংগঠকদের উৎসাহ দিতে আকাদেমির পক্ষ থেকে কয়েক জনকে সম্মান জানানো জানানো হয় প্রতিবছর।

এবার সম্মান পেয়েছেন পুষ্পিত মুখোপাধ্যায়, তন্বী হালদার, অজয় গুপ্ত, সুব্রত রুদ্র, গণেশ হালুই, চৈতালী চট্টোপাধ্যায়, স্বপন পাণ্ডা, সাম্যব্রত জোয়ারদার, শাশ্বতী সান্যাল, বেবী সাউ প্রমুখ। এছাড়া কৃত্তবাস ও কবিতা আশ্রম পত্রিকাকে সম্মান জানানো হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমির সভাপতি শাঁওলী মিত্র, আকাদেমির সম্মানীয় সদস্য জয় গোস্বামী, অভীক মজুমদার, প্রসূন ভৌমিক প্রমুখ।

মেলা ও উৎসবকে কেন্দ্র করে প্রতিদিন সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতি বছর এই উৎসব সাহিত্যপ্রেমীদের মিলনক্ষেত্রে পরিণত হয়। এবার অংশ নিয়েছ প্রায় চার শতাধিক লিটল ম্যাগাজিন। কবিতাপাঠ, গল্পপাঠ, আলোচনা ও গানের অনুষ্ঠান থাকে। মেলা উপলক্ষে বিভিন্ন লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছে নতুন নতুন সংখ্যা। হাওড়া ও শিয়ালদা থেকে মেলাস্থলে যাবার জন্য বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করে কর্তৃপক্ষ।

নন্দন চত্বরে লিটল ম্যাগাজিন মেলা প্রাণ পেয়েছিল। ২০১৭ সালে ঠাঁইনাড়া হবার পর কিছুটা হলেও এই মেলা পাঠকের আকর্ষণ হারিয়েছে। তবে এবার থেকে কিছুটা হলেও জমজমাট ছিল মেলা এমনই দাবি অংশগ্রহণকারীদের। অনেকের মতে, বিধাননগরে আগামী দিনে আরও জমজমাট হবে লিটল ম্যাগাজিন মেলা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ