কলকাতা: ঘরের ভিতরে পড়ে আছে যুবক৷ তার চারিদিকে রক্তে ভেসে গিয়েছে৷ হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে ঘোষনা৷ ঘটনাটি ঘটেছে সল্টলেকের বিসি ৭৯ নম্বর বাড়িতে৷ তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷

পুলিশ সূত্রে খবর,সোমবার দুপুরে বাবা দীপঙ্কর মুখার্জী ছেলেকে ডাকতে তার ঘরে যান৷ তখন তিনি দেখতে পান ছেলে তীর্থঙ্কর মুখোপাধ্যায় (৩৯) ঘরের মেঝেতে পড়ে আছে৷ চারিদিকে রক্তে ভেসে গিয়েছে৷ বাঁ হাতের শিরা কাটা৷ এরপরই তিনি চিৎকার করে কান্না করতে থাকেন৷ ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা৷ তারা ওই অবস্থা দেখে বিধাননগর উত্তর থানায় খবর দেন৷

খবর পেয়ে পুলিশ সল্টলেকের বিসি ৭৯ বাড়িতে এসে ঘর থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে৷ এবং বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসকরা তীর্থঙ্করকে মৃত বলে ঘোষনা করে৷ মৃত ওই ব্যক্তি বেশ কিছুদিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন৷ যদিও ময়না তদন্তের পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারন জানা যাবে৷ এছাড়া গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করছে বিধাননগর উত্তর থানার পুলিশ৷

অন্যদিকে এদিনই এয়ারপোর্ট থানার নবজীবন কলোনীর একটি পুকুর থেকে এক কিশোরকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করা হয়৷ পুলিশ সূত্রে খবর, দেবাংশু দাস (১৭) নামে ওই কিশোরের বাড়ি কলকাতা হরিদেবপুর থানার টালিগঞ্জ করুনাময়ী৷ নবজীবন কলোনীর বাসিন্দারাই উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে পাঠায়৷ সেখান থেকে তাকে বারাসত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷