কেনে উইলিমসঃ  উইনিউজিল্যান্ডের সাউথ আইল্যান্ডে সপ্তাহখানেক আগে শুরু হওয়া দাবানল এখনও পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণে আসেনি। দাবানলের কারণে সংশ্লিষ্ট এলাকা থেকে সরে যেতে হয়েছে প্রায় তিন হাজার মানুষকে। আশঙ্কা করা হচ্ছে দাবানল নিয়ন্ত্রণে না আসলে আরও অনেককে এলাকা ছাড়তে হবে।

রয়টার্সে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে যে, দাবানলের ব্যাপকতা এত বেশি যে তা নিয়ন্ত্রণে নিউ জিল্যান্ডকে রেকর্ড মাত্রায় চেষ্টা চালাতে হচ্ছে। দাবানল শুরু হয়েছে গত সোমবার থেকে। আর তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকায় বুধবার সে দেশের প্রশাসন জাতীয় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ১৯৫৫ সালের পর থেকে দেশে এত বড় দাবানল আর হয়নি। নিউজিল্যান্ডের সংশ্লিষ্ট সরকারি অফিস থেকে এই বিবৃতিতে জানিয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে যে, পিজিওন ভ্যালিতে ২৫ কিলোমিটার ব্যাসের এলাকায় দাবানল জ্বলছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার ৭০০ একর ভূমি। বায়ুপ্রবাহের বেগ বাড়তে থাকায় দাবানল পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। আজ রবিবার পর্যন্ত ১৫৫ জন ফায়ার সার্ভিস কর্মীকে দাবানল নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে দেখা গিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ২৩টি হেলিকপ্টার এবং তিনটি বিমান।

নিউজিল্যান্ডের সিভিল ডিফেন্স কন্ট্রোলার রজার বল এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, ওয়েকফিল্ড এবং পিজিওন ভ্যালি থেকে প্রায় তিন হাজার মানুষকে সরিয়ে নিতে হয়েছে। রবিবার আরও অনেক মানুষকে সরিয়ে নেওয়া লাগতে পারে। এদিকে স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে বেগ পেতে হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট এলাকাটি বনভূমি হলেও সেখানে বহু ছোট ছোট কৃষি খামার রয়েছে। বাসিন্দারা তাদের গবাদি পশু ও ঘরবাড়ির ফেলে যেতে চাইছেন না।