স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে একজন তৃণমূলের প্রার্থী অপরজন রাজ্য বিজেপির শীর্ষ নেতা, এই দুজনের বিরুদ্ধেই কড়া পদক্ষেপ নিল নির্বাচন কমিশন৷ সুজাতা মণ্ডল ও সায়ন্তন বসুর  প্রচারে ২৪ ঘণ্টার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করল কমিশন৷ রবিবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে সোমবার সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দুজনেই প্রচার করতে পারবেন না৷

ফাইল ছবি

১০ এপ্রিল শনিবার রাজ্যের চতুর্থ দফা নির্বাচনের সময় শীতলকুচিতে গুলি চালায় কেন্দ্রীয় বাহিনী। এই ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়ে যায় রাজ্য রাজনীতিতে। আর ঠিক সেই সময়ে বিজেপির নেতারা একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্য করতে থাকেন এই শীতলকুচি কাণ্ড নিয়ে । একটি জনসভায় সায়ন্তন বসু বলেছিলেন, ‘‘আমি সায়ন্তন বসু বলছিল, বেশি খেলতে যাবেন না। আমরা শীতলখুচিতে খেলা খেলে দিয়েছি। প্রথমে ১৮ বছর বয়সী আনন্দ বর্মণকে খুন করা হয়েছিল। যে প্রথমবার ভোটার, তাঁকে সকালে খুন করা হল। আমাদের শক্তি প্রমুখের ভাই তিনি। আমরা বেশিক্ষণের জন্য কারও হিসেব বাকি রাখি না। সেখানে চারজনকে স্বর্গে পাঠানো হয়ে গিয়েছে। শোলে সিনেমায় একটি ডায়লগ আছে, তুম আগর এক মারো গে তো হম চার মারেঙ্গে।’’ এই মন্তব্যের জন্যই সায়ন্তনকে শো-কজ করেছিল কমিশন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জবাব তলব করা হয়েছিল। নির্বাচন কমিশনের নোটিশের জবাবও দেন বিজেপি নেতা। কিন্তু, জবাবে সন্তুষ্ট না হওয়ায় তাঁর প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করল কমিশন।

অন্যদিকে, কিছুদিন আগে তফসিলি জাতিদের নিয়ে আরামবাগের তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা মণ্ডলের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি। সুজাতা খাঁ বলেছিলেন, ‘কেউ থাকে স্বভাবে ভিখারি, কেউ থাকে অভাবে ভিখারি। এখানকার তফসিলিরা হচ্ছে স্বভাবে ভিখারি। এদের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উজাড় করে দিয়েছে তারপরও তারা বিজেপি-র সামান্য টাকার কাছে বিক্রি হয়ে গিয়ে আমাদের উপর অত্যাচার করছে।’ আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে তাঁকেও শোকজ করা হয়েছিল। সুজাতার জবাবে সন্তুষ্ট না হওয়ায় তাঁর ভোটপ্রচারেও ২৪ ঘণ্টার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.