ওয়াশিংটন: এক সময়কার সিআইএ গুপ্তচর আন্তনিও ভেসিয়ানা তাঁর জীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরতে একটি বই লিখেছেন৷ কী আছে তাতে? আমেরিকার ‘নিউজউইক’ পত্রিকায় সাংবাদিক জেফারসন মরলি যতটা তুলে ধরেছেন তা থেকেই বোঝা যায়, আগামী দিনে ভেসিয়ানার এই বই চাঞ্চল্য ছড়াবে৷ বিশেষ করে, কেনেডি হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে৷

আন্তনিও ভেসিয়ানার এই স্মৃতিকথার নাম ‘ট্রেইনড টু কিল: দ্য ইনসাইড স্টোরি অব সিআইএ প্লটস এগেনস্ট কাস্ত্রো, কেনেডি অ্যান্ড চে’৷ বইটি লিখতে তাঁকে সাহায্য করেছেন বর্ষীয়ান সাংবাদিক কার্লস হ্যারিসন৷ সিআইএ-র হয়ে কাজ করার সময় কিউবার বাসিন্দা আন্তনিও ভেসিয়ানার কোডনেম ছিল অ্যামশেল-ওয়ান৷ কাস্ত্রোকে হত্যা করার চেষ্টা সহ হাভানায় একাধিক অন্তর্ঘাতেও জড়িত ছিলেন তিনি৷ অন্তর্ঘাতের জন্যই ১৯৬০ সালে তিনি কিউবার বিপ্লবী সরকারে যোগ দেন৷ তখন কিউবার অর্থমন্ত্রী চে গেভারা৷ চে-র মন্ত্রকে কাজ করার সময় ভেসিয়ানা সেখান থেকে টাকা সরান এবং সেই তহবিল থেকেই কিউবায় সিআইএ-র বিভিন্ন অন্তর্ঘাতে মদত জোগান৷ যদিও ভেসিয়ানার নিজের ভাষাতেই, তাঁকে দেখলে মোটেও সিনেমাটিক স্পাই বলে মনে হত না৷ কেউ তাই পাত্তাও দিত না৷ একটা হাড়গিলে, হাঁফানি রোগীকে নিয়ে কারই বা মাথাব্যথা থাকবে? কিন্তু সেই ভেসিয়ানার উপর ভর করেই সিআইএ কাস্ত্রোর কিউবা-র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের একের পর এক ছক কষেছিল৷ এমনকী, কাস্ত্রোকে মেরে ফেলার ভারও ভেসিয়ানাকে দেওয়া হয়েছিল৷ হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল কালাশনিকভ৷ কিন্তু কোনও ষড়যন্ত্রই যে তেমনভাবে কাজে লাগেনি, তার প্রমাণ— দীর্ঘায়ু কাস্ত্রো অবশেষে জরাগ্রস্ত হয়ে হালে দেহ রেখেছেন৷ তবু, ভুয়া খবর ও উসকানি ছড়িয়ে যে সেই সময় বহু কিউবানকে দেশ ত্যাগ করে আমেরিকায় আশ্রয় নেওয়ার জন্য ভেসিয়ানাকে কাজে লাগানো হয়েছিল, সে কথা ‘অ্যামশেল-ওয়ান’ নিজের স্মৃতিকথাতেই স্বীকার করেছেন৷

তবে আন্তনিও ভেসিয়ানা-র স্মৃতিকথার সব থেকে যেটা চাঞ্চল্যকর দিক সেটা এ-ই : প্রেসিডেন্ট কেনেডির হত্যাকাণ্ডের পিছনে যে গভীর ষড়যন্ত্র ছিল সে কথা প্রকারান্তরে স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে৷ ভেসিয়ানা লিখেছেন, কিউবা নিয়ে কেনেডি-র নমনীয়তায় সিআইএ সহ আমেরিকান ইন্টেলিজেন্সের অনেকেই ক্ষুব্ধ ছিল৷ ভেসিয়ানা নিজে তো ছিলেনই৷ এ রকমই একটা সময়ে ডালাসের সর্বোচ্চ বহুতল সাউথল্যান্ড সেন্টারে সিআইএ-র সহকর্মী ‘মরিস বিশপ’ একটি লোকের সঙ্গে তাঁকে আলাপ করিয়ে দেন৷ লোকটি নেহাতই এলেবেলে টাইপের৷ তাই তার সঙ্গে আলাপ করেও পাত্তা দেননি ভেসিয়ানা৷ কিন্তু সেই ঘটনার দুই মাস বাদে, ১৯৬৩ সালের ২২ নভেম্বর কেনেডি হত্যার পর টিভি-তে দেখতে পেলেন, সেই এলেবেলে লোকটিই প্রেসিডেন্টের হত্যাকারী— লি হার্ভে অসওয়াল্ড! যে সিআইএ সহকর্মীর কোডনেম ছিল ‘মরিস বিশপ’, পরবর্তীকালে তিনি সিআইএ-র একজন পদস্থ কর্তা হন— ডেভিড অ্যাটলি ফিলিপস৷ সিআইএ-র পশ্চিম গোলার্ধের দায়ভার ছিল তাঁর উপর৷ অবসর নেন ১৯৭৫ সালে৷

আন্তনিও ভেসিয়ানার দাবি, ১৯৬৩ সালের ২২ নভেম্বরের আগে পর্যন্ত শুধু ডেভিড ফিলিপস অ্যাটলি নন, অন্তত ছ’জন পদস্থ সিআইএ কর্তার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল লি হার্ভে অসওয়াল্ডের৷ অর্থাৎ, ভেসিয়ানার মতে, কেনেডি হত্যা নিয়ে ওয়ারেন কমিশনের রিপোর্টে যা লেখা হয়েছে তা সঠিক নয়৷

ভেসিয়ানা-র দাবি ঠিক না ভুল, তা জানার জন্য অবশ্য আগামী অক্টোবর মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে৷ ডেভিড অ্যাটলি ফিলিপসকে নিয়ে সিআইএ-র কিছু গোপন গুরুত্বপূর্ণ নথি সেই সময়েই জনসমক্ষে প্রকাশ পাওয়ার কথা৷ এক যদি না তা ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন আটকে দেয়৷

 

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব