স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: করোনা নিয়ে তথ্য গোপন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এই সময় রাজনীতি করছেন তিনি। মালদহ জেলায় পর্যাপ্ত কিটস থাকলেও পরীক্ষা করা হচ্ছে না রোগীদের। রাজ্য এবং জেলায় কত মানুষ করোনা আক্রান্ত সেই তথ্যও লুকাচ্ছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মঙলবার সাংবাদিক বৈঠকে এমনই অভিযোগ তুললেন উত্তর মালদহ কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু।

মঙ্গলবার বিকেলে জেলা বিজেপি কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন তিনি। পাশাপাশি তিনি বলেন, “মালদহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেশিন থাকতেও সেখানে টেস্ট করা হচ্ছে না।বলা হচ্ছে সেই মেশিন খারাপ পাশাপাশি বেশ কিছুদিন আগে গঙ্গারামপুরের তপন এলাকার একটি পরিযায়ী শ্রমিক যে গাজিয়াবাদ থেকে এসেছিল প্রচন্ড জ্বর নিয়ে সেখানে মালদা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ চিকিৎসা না করে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আমাদের প্রশ্ন সে করোনা আক্রান্ত যদি হয়ে থাকে তাহলে ওই পরিযায়ী মৃত শ্রমিকের সঙ্গে যারা যারা জড়িত ছিলেন তাদের আজকে কি অবস্থা হবে। “

এদিন তিনি আরও বলেন, “আমার মালদহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকের। সঙ্গে কথা হয় এই বিষয়ে। তদন্তের জন্য সেই চিকিৎসক, কর্মীকে জানিয়েছেন যে এখানে কোনও কিছু বলতে বারণ করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে রাজনীতি করা উচিত না। অথচ করো না নিয়ে তথ্য গোপন করছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।আমরা চাই জেলায় কতজন আক্রান্ত রয়েছে আর কি পরিস্থিতি রয়েছে তা সমস্তটাই লিখিতভাবে মানুষের হাতে তুলে দিক।”

জেলা তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, “আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবেলায় সঠিক পদক্ষেপ নিচ্ছেন। আর মানুষ তা দেখছেন। সঠিক তথ্য দেওয়া হচ্ছে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। বিজেপি এই সময় অযথা রাজনীতি করছে। বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে। এখন রাজনীতি করার সময় নয় তাদের উচিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।