তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: তিন দিনের জেলা সফরে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাঁকুড়ায় পৌঁছে তাঁর একটি প্রশাসনিক বৈঠক, সরকারি পরিষেবা প্রদান ও দলীয় জনসভা করার কথা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

জেলা প্রশাসন ও তৃণমূল সূত্রে খবর, আগামী সোমবার হেলিকপ্টারে সরাসরি খাতড়ায় পৌঁছাবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে পৌঁছেই গুরুসদয় মঞ্চে একটি প্রশাসনিক বৈঠক করবেন। ঐ বেঠক শেষে মুকুটমনিপুরে গিয়ে কংসাবতী সেচ বাংলোয় রাত্রীযাপন করবেন।

পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে খাতড়াতেই একটি সরকারী পরিষেবা প্রদান কর্মসূচী রয়েছে তাঁর। সেখান থেকেই সরাসরি বাঁকুড়া সার্কিট হাউসের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। বুধবার শুনুকপাহাড়ি হাটের মাঠে একটি জনসভা করার কথা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর।

তার মাঝেই বুধবার রাতে সার্কিট হাউসে দলের জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে সাংগঠনিক আলোচনা করতে পারেন তৃণমূল নেত্রী, এমন খবর পাওয়া যাচ্ছে। যদিও তৃণমূল নেতৃত্বের তরফে এই খবরে এখনো সিলমোহর দেওয়া হয়নি।

বিগত লোকসভা ভোটের ফলাফলের নিরিখে বাঁকুড়া জেলায় এগিয়ে গেরুয়া শিবির। জেলার দুই লোকসভা আসন হাতছাড়া হওয়ার পাশাপাশি জেলার ১২টি বিধানসভা কেন্দ্রেই শাসক দলকে পিছনে ফেলে এগিয়ে বিজেপি। তার উপর নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই বাঁকুড়া সফর সেরে ফিরে গেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় প্রাক্তন সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ্।

ঠিক তার পরেই তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর এই বাঁকুড়া সফর যথেষ্ট তাৎপর্য্যপূর্ণ বলেই জেলা রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ মনে করছেন। লাল মাটির এই জেলার হারানো মাটি ফিরে পেতে দলীয় নেতৃত্বকে কি ‘টিপস্’ দেন তৃণমূল নেত্রী, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সবাই।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তিন দিনের জেলা সফর ঘিরে ব্যাপক তৎপরতা শুরু হয়েছে প্রশাসন ও জেলা তৃণমূলের তরফে। বাঁকুড়া পৌরসভার নবনিযুক্ত ‘প্রশাসক’ অলকা সেন মজুমদার অন্য দুই সদস্য দিলীপ আগরওয়াল ও গৌতম দাশকে সঙ্গে নিয়ে ইতিমধ্যে সার্কিট হাউস পরিদর্শন করার পাশাপাশি সব ধরণের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখে গেছেন।

অলকা সেন মজুমদার, দিলীপ আগরওয়ালরা বলেন, মুখ্যমন্ত্রী জেলায় আসছেন আমরা গর্বিত, আনন্দিত। জেলা জুড়ে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে। শুনুকপাহাড়ির দলীয় জনসভায় ৭০ থেকে ৮০ হাজার মানুষের জমায়েত হবে বলে তাঁরা দাবি করেন।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।